¦

এইমাত্র পাওয়া

  • সিরাজগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৪
সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের সঙ্গে বিদ্যানন্দ

| প্রকাশ : ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪

বিদ্যানন্দ এমন একটি শিক্ষা সহায়ক সংস্থা যেখানে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা আনন্দের সঙ্গে শিক্ষা লাভ করে। ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং নারায়ণগঞ্জের তিনটি শাখায় বিনামূল্যে শিক্ষা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যানন্দ সর্বসাধারণের জন্য পাঠাগার সুবিধা দিয়ে আসছে।
বিদ্যানন্দের লক্ষ্য : আনন্দদায়ক উপকরণের মাধ্যমে মৌলিক জ্ঞান বিকশিত করে লেখাপড়ায় শিশুদের আগ্রহী করে তোলা এবং প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার ভীতিকে দূর করে উচ্চতর শিক্ষার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। এছাড়াও উন্মুক্ত লাইব্রেরির মাধ্যমে বইকে সবার কাছে পৌঁছে দেয়া বিদ্যানন্দের অন্যতম লক্ষ্য।
বিদ্যানন্দের শাখাসমূহ :
বিদ্যানন্দের এখন শাখা হল তিনটি। আমাদের সব শাখা বছরের প্রতিটি দিন খোলা থাকে সর্বসাধারণের জন্য।
নারায়াণগঞ্জ শাখা- প্রত্যন্ত এ শাখায় আমরা মাধ্যমিক শ্রেণী পর্যন্ত ফ্রি টিচিং দিয়ে থাকি। শিশুশ্রমের বিরুদ্ধে যুদ্ধজয় করতে আমরা কিছু উৎসাহমূলক প্রোগ্রাম চালু করেছি এ শাখায়। এছাড়া এ শাখায় আছে ১ হাজার বইয়ের উন্মুক্ত লাইব্রেরি।
চট্টগ্রাম শাখা- ৩ হাজার বইয়ের লাইব্রেরি নিয়ে যাত্রা শুরু করা এ শাখা খুব অল্প সময়ে ছাত্রছাত্রীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠে বিশাল বইয়ের ভাণ্ডারের জন্য। এ জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে আমরা চালু করেছি মেধাবী ছাত্রদের জন্য বিনামূল্যে কোচিং।
মিরপুর শাখা- বিদ্যানন্দের সর্ববৃহৎ এ শাখায় আছে ৪ হাজার বইয়ের বিশাল লাইব্রেরি। স্কুল-কলেজের দুই-শতাধিক ছাত্রছাত্রীকে আমরা বিনামূল্যে ফ্রি কোচিং দিচ্ছি এ শাখা থেকে।
বিদ্যানন্দের কার্যক্রমসমূহ :
১। মেধা বিকাশের জন্য টিচিং সেন্টার। স্কুল-কলেজে নিয়মিত একাডেমিক কোচিংসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কোচিং দিয়ে আসছে।
২। প্রতিটি শাখায় লাইব্রেরি সুবিধা। যা সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকে বছরের সবকটি দিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত।
৩। অসচ্ছল মেধাবী ছাত্রকে বৃত্তি প্রদান। এছাড়াও আমরা গরিব ছাত্রদের শিক্ষাউপকরণ, বই দিয়ে থাকি।
উল্লেখিত পদক্ষেপ ছাড়াও বিদ্যানন্দ দুটি বড় ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে।
১০ হাজার শিশুর জন্য ফ্রেমে বাঁধা শৈশব- আমাদের দেশে বেশিরভাগ গরিব শিশুর কোনো ছবি সংরক্ষণ করতে পারে না। বিদ্যানন্দ এগিয়ে এসেছে গরিব শিশুদের ছবি সংরক্ষণে। প্রাথমিক ধাপ হিসেবে আমরা ১০ হাজার শিশুর ছবি তুলে তা প্রিন্ট এবং লেমেনেটিং করে অভিভাবকদের মাঝে তুলে দিচ্ছি।
Let's Be Gordo!!/চলো বন্ধু হই- শৈশব পাড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পারিবারিক-সামাজিক অবস্থান আমাদের একটা গণ্ডির মধ্যে বেঁধে ফেলে। অনেকে পারে না এই গণ্ডির মধ্যে কোনো বন্ধু খুঁজে পেতে, যা তাকে ক্রমে হীনমন্যতা, একাকীত্বে ফেলে দেয়। আমরা সাধারণত তাদের সঙ্গেই বন্ধুত্ব করি যাদের আমরা পছন্দ করি, তাকে নয় যার আমারে প্রয়োজন। সঙ্গীহীন এ জীবন তার শিক্ষাসহ জীবনের আত্মবিশ্বাসে প্রভাব ফেলে। তাই বিদ্যানন্দ শুরু করেছে বন্ধু সৃষ্টি করার এ কার্যক্রম। যেখানে আমরা নিজের গণ্ডির বাইরে বন্ধু হতে উৎসাহিত করছি।
ভিডিও টিউটোরিয়াল- গ্রামাঞ্চলে ভালো শিক্ষকের পাওয়া দুষ্কর, একই সঙ্গে সেখানে নেই ইন্টারনেটের কানেকশন। চাইলেও ভালোভাবে জ্ঞান অর্জন করা সম্ভব নয়। এ সমস্যাকে দূরীভূত করতে বিদ্যানন্দ এবং শিক্ষক কম একত্র হয়ে কাজ করছে ভিডিও টিউটোরিয়াল তৈরির কাজ। যা পরে সিডি/ডিভিডি বিদ্যানন্দ বিনামূল্যে বিতরণ করবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে।
বিদ্যানন্দের আয়ের উৎস : বিদ্যানন্দের প্রতিষ্ঠার সব অর্থ এর প্রতিষ্ঠাতা দান করেছেন। এছাড়াও এর মাসিক খরচের শুধু ৫-১০ ভাগ দানে পেয়ে থাকে, বাকি অর্থ প্রতিষ্ঠাতা দিয়ে থাকেন। বিদ্যানন্দ চেয়েছেন স্বেচ্ছাসেবকরা দান সংগ্রহে সময় ব্যয় না করে বরঞ্চ ছাত্রের মানোন্নয়নে মূল ভূমিকা রাখুক। তবে ভবিষ্যৎ বিদ্যানন্দের কাজের পরিধি দানের ওপর নির্ভরশীল হতে হবে।
যেভাবে আপনি ও হতে পারেন বিদ্যানন্দের অংশীদার : আপনার কিঞ্চিত সহযোগিতায় এ প্রজন্ম ধীরে ধীরে চেনা বিষয়কেই চিনতে শিখবে যা তাদের মধ্যে অচেনা বিষয়কে চেনার আকাক্সক্ষা তৈরি করবে। যেভাবে আপনি সাহায্য করতে পারেন :
১। শিশুদের বৃত্তির জন্য অর্থ সাহায্য করে
২। শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষাউপকরণ (বই, খাত), খাবার সরবরাহ করে।
৩। শ্রম দিয়ে বিদ্যানন্দের কাজকে এগিয়ে নিয়ে
সবচেয়ে বড় যে কাজটি আপনি করতে পারেন সেটি হল বিদ্যানন্দে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে যোগ দিয়ে।
যোগাযোগের ঠিকানা-
ঢাকা ব্রাঞ্চ- বাড়ি নম্বর ৬৭/২ (চতুর্থ তলা), সেকশন- ১২/এ, পল্লবী, মিরপুর, ঢাকা- ১২১৬
চট্টগ্রাম ব্রাঞ্চ- বাড়ি নম্বর ২৪৫ (তৃতীয় তলা), ২ নম্বর গেট, চট্টগ্রাম-৪০০০
নারায়ণগঞ্জ ব্রাঞ্চ- সাব্দি বাজার,বন্দর,নারায়ণগঞ্জ
ওয়েবসাইট- http://bidyanondo.org/
ফেইসবুক-
https://www.facebook.com/Bidyanondo
টিউটোরিয়াল পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close