অনলাইন ডেস্ক    |    
প্রকাশ : ১৯ জুন, ২০১৭ ১৮:৩২:৪৭
ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করা কে এই ফখর জামান?
চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছেন পাকিস্তানের ওপেনার ফখর জামান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে চতুর্থ ইনিংসে এসেই ভারতীয় বোলারদের তুলোধুনো করে সেঞ্চুরি তুলে নেন এ বামহাতি ব্যাটসম্যান।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অভিষেক হয় ফখর জামানের। অভিষেক ম্যাচে আলো ছড়াতে না পারলেও পরের ম্যাচগুলোতে ঠিকই তার জাত চিনিয়েছেন।

পরের দুই ম্যাচে টানা অর্ধশতক হাঁকান ফখর। আর ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি তুলে হইচই ফেলে দেন ফখর।

ফখর জামান এক সময় পাক নৌসেনায় সেপাইয়ের কাজ করতেন। গরিবের সংসারে ক্রিকেট খেলা দূরে থাক, দৈনন্দিন জীবনযাপনই হয়ে উঠেছিল কঠিন। তাই বাধ্য হয়ে সেপাই হিসেবে যোগ দিতে হয়।

ফখর জামানের মেন্টর আজাব খান। ভারতীয় পেসার জাসপ্রিত বুমরার ‘নো বল’ হয়তো ফখরের জীবনের টার্নিং পয়েন্ট হয়ে থাকবে। কিন্তু তারও অনেক আগে আজাবের সঙ্গে দেখা হওয়াটা ছিল চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি ফাইনালের নায়কের জীবনের টার্নিং পয়েন্ট।

ভারতের একটি পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে আজাব খান বলেন, নৌসেনার কোচ ছিল নাজিম খান। ওই প্রথম আমার কাছে নিয়ে এসেছিল ফখরকে। আমি প্রথম ওকে অনূর্ধ্ব উনিশ ডিস্ট্রিক্ট ম্যাচে খেলাই। সেই ম্যাচে ও বেশ ভালো খেলেছিল। সেটাই ছিল শুরু।

প্রথম যখন নেটে ব্যাট করতে দেখেছিলেন ফখরকে, কী মনে হয়েছিল? আজাব বললেন, আমি খুবই প্রভাবিত হয়ে গিয়েছিলাম। একটুও অতিরঞ্জিত করে বলছি না। আমরা দেখেই বুঝেছিলাম, একদিন এই ছেলে পাকিস্তানের হয়ে খেলবে।

ফখর তাদের কাউকে হতাশ করেননি। যদিও তাকে পরিশ্রম করে যেতে হয়েছে গন্তব্যে পৌঁছনোর জন্য। নির্বাচকদের চোখে পড়তে সময় লেগেছে। যে পাকিস্তান সুপার লিগ-পিএসএল টি২০ খেলে তিনি নজরে পড়লেন, সেই টুর্নামেন্টেই প্রথমবার তাকে কেউ নিলামে কেনেনি।

খাইবার অঞ্চলে মারদান নামে একটি শহর থেকে এসেছেন ফখর। যেখান থেকে পাকিস্তানের মহাতারকা ইউনিস খানও এসেছেন। তবে ফখর একাধিক শহরে ঘুরেছেন ক্রিকেটার হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে।

প্রথমে নৌসেনার সেপাইয়ের কাজ থেকে তাকে ক্রিকেটে তুলে আনেন আজাব। তার পর নিয়মিত হওয়ার জন্য তাকে লাহোর থেকে করাচি দৌড়ে বেড়াতে হয়েছে। কিন্তু তার আসল উত্থান ঘটে আজাব তাকে করাচির পাকিস্তান ক্রিকেট ক্লাবে নিয়ে আসার পরে।

এই ক্লাবটি চালান আজাবই। এখান থেকে উঠেছেন পাকিস্তানের বর্তমান অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। নতুন পেস বোলার রুম্মন রইস এই ক্লাবের। ফখরের সবচেয়ে বড় সুবিধে হয়, সরফরাজ তাকে শুরু থেকে চেনায়।

আজাব খান বলেন, সরফরাজ অধিনায়ক হওয়ার পরে ফখরকে নিয়ে ভাবতে শুরু করে। কারণ, আমাদের ক্লাবে খেলার সময়ই ও দেখে নিয়েছিল, ফখরের মধ্যে ম্যাচউইনার হওয়ার ক্ষমতা রয়েছে।

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাকে ওপেনার হিসেবে নামানোর সিদ্ধান্তও সরফরাজের। মিকি আর্থারের নয়। গোটা ক্রিকেট বিশ্বে এখন বিস্ময় তৈরি হয়েছে যে, এমন প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান থাকা সত্ত্বেও পাকিস্তান তাকে খেলাচ্ছিল না কেন? শেষ পর্যন্ত ফখর শুধু খেললেনই না, শুধু পাকিস্তানকে জেতালেনই না, জীবনযুদ্ধে জেতার উদাহরণও রেখে গেলেন লন্ডনে।
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by