স্পোর্টস রিপোর্টার    |    
প্রকাশ : ২১ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০:০০
নাসিরকে ‘অভ্যস্ত’ করার প্রক্রিয়া শুরু
ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত পারফর্ম করছেন নাসির হোসেন। গাজী গ্রুপের হয়ে মোহামেডানের বিপক্ষে শতক (১০৬*) হাঁকিয়ে ঢাকা লীগ শুরু করেছেন। পরের ম্যাচে ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে অপরাজিত থাকেন ৪১ রানে। এর আগে ইমার্জিং কাপেও হেসেছিল নাসিরের ব্যাট। নেপালের বিপক্ষে খেলেছিলেন ১০৯ রানের হার না-মানা ইনিংস। প্রতিদানও পেলেন। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য ঘোষিত ১৮ সদস্যের দলে ডাক পেয়েছেন তিনি। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রুফির ১৫ সদস্যের দলে জায়গা না পেলেও স্ট্যান্ডবাই হিসেবে রয়েছেন নাসির। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর বিশ্বাস, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্রুত ছন্দ ফিরে পাবেন নাসির। অন্যদিকে ত্রিদেশীয় সিরিজ ও চ্যাম্পিয়ন্স ট্রুফির দলে ফিরেছেন পেসার শফিউল ইসলাম। কন্ডিশনের কথা বিবেচনায় ‘ফিট’ শফিউলকে দলে নেয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সকালে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে দল ঘোষণার পর প্রধান নির্বাচকের ভাষ্য, ‘নাসির এক বছর ধরে দলের সঙ্গে সফর করছে না। সেই হিসেবে তাকে আমরা একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে এনেছি। সে ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো খেলছে। সাসেক্সে প্রস্তুতি ক্যাম্প হবে। আয়ারল্যান্ড সফরে ওকে অভ্যস্ত করা দরকার। এ কন্ডিশনে আমাদের অনেক খেলোয়াড় খেলেনি। সামনে আমাদের অনেক অ্যাওয়ে সিরিজ। দক্ষিণ আফ্রিকায় সিরিজ আছে। কিছু খেলোয়াড়কে আমাদের তৈরি করা দরকার। সেই হিসেবে আমরা ১৮ জন নিয়ে যাচ্ছি।’
ব্যাটিং-অর্ডারে সাব্বির রহমানের উন্নতিও নাসিরকে দলে নেয়ার অন্যতম কারণ। ‘একই পজিশনে আগে তিনজন খেলোয়াড় ছিল। সাব্বির, মোসাদ্দেক ও মাহমুদউল্লাহ। এ তিনজনের পর নাসির। এখন সাব্বির খেলছে তিনে। একটা জায়গা খালি হয়েছে। সে হিসেবে ও দলে এসেছে। এখন ওদের তিনজনের মধ্যে প্রতিযোগিতা হবে ছয় ও সাতে ব্যাট করার জন্য। ওকে এখন আমাদের তৈরি করতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেট আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের মধ্যে অনেক পার্থক্য। কাউকে পুরোপুরি তৈরি না করে হুট করে খেলানো কঠিন’, নাসির সম্পর্কে প্রধান নির্বাচকের মন্তব্য।
দুই দলে পেসার শফিউল ইসলামের অন্তর্ভুক্তি নিয়ে প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘গত বিপিএলে ইনজুরিতে না পড়লে শফিউল আমাদের অনেক সিরিজেই থাকত। তাছাড়া ম্যানেজমেন্ট থেকে কিছু নেতিবাচক মনোভাব ছিল যে টানা ম্যাচ খেলা ওর জন্য কঠিন হয়ে যায়। এজন্য কন্ডিশনের কথা বিবেচনায় রেখে ওকে শ্রীলংকা সিরিজে আমরা রাখিনি। কারণ শ্রীলংকায় অনেক গরম। টানা ম্যাচ খেলা ওর জন্য কঠিন হয়ে যেত। ওর ফিটনেস লেভেল এখন ঠিক আছে। যেহেতু আমরা ঠাণ্ডা কন্ডিশনে খেলব, তাই ও টানা ম্যাচ খেলতে পারবে।’
আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রুফির জন্য ঘোষিত বাংলাদেশ দলে পাঁচজন পেসার। পেস অলরাউন্ডার তেমন কেউ নেই। প্রধান নির্বাচকের বিশ্বাস, মাশরাফি মর্তুজা সেই অভাব পূরণ করতে পারবেন। মিনহাজুল
আবেদিন বলেন, ‘আমাদের অধিনায়ক মাশরাফিই তো পেস অলরাউন্ডার। তবে আমরা সাইফউদ্দিনকে এরই মধ্যে টি ২০তে অন্তর্ভুক্ত করেছি। ওকে আরও উন্নতি করতে হবে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে একটু সময় লাগে। আমি মনে করি, ওর যোগ্যতা আছে।’



  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by