টেনশন!

  কাজী সুলতানুল আরেফিন ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২০:০২:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

ইদানীং প্রকৃতি খুব ঘনঘন ডাকছে। খুব টেনশনে পড়ে গেলাম! গলাও শুকিয়ে যাচ্ছে। সব মিলিয়ে ডায়াবেটিসের লক্ষণ! এই রোগ হলে খুব বিপাকে পড়ে যেতে হবে। এ রোগে আক্রান্তদের মুখে লাগাম টানতে হয়। জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হয়। আমার এ চিন্তার কারণ নাহিদা বেগমকে জানালাম।

ডায়াবেটিস হওয়ার আশঙ্কা প্রায় নিশ্চিত। শুনেই সে ধপাস করে বিছানায় বসে পড়ল। তারপর মাথায় হাত দিয়ে টেনশন করতে শুরু করল। অস্থির হয়ে হাঁপাতেও লাগল। তার এমন অবস্থা দেখে আমার ভালোই লাগছে। এই প্রথম তাকে দেখলাম আমার অসুখ হবে শুনে অস্থির হতে। টেনশন করতে।

অথচ গত মাসে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বিছানায় যখন কাতরাচ্ছিলাম তখনও সে মুখ বাঁকা করে বলেছিল, ‘ঢঙ দেখে আর বাঁচি না!’
আমি তাকে বলেছিলাম, ‘ডেঙ্গুও তো হতে পারে!’

সে বলেছিল, ‘মশা কোনো দিনও তোমার গায়ের কাছে ঘেঁষবে না! তোমার ঘামে কয়েলের গন্ধ পাওয়া যায়!’

‘আমি মরে গেলেও কি তোমার আফসোস হবে না?’ ‘আফসোস করলে কি তোমার আত্মা এসে আমার কাজগুলো করে দেবে? তাহলে আফসোস করব!’

তার এমন কথায় দিন দিন হতাশার পাহাড়ের চূড়ার কাছাকাছি উঠে পড়েছি আমি। কিন্তু আজ এমন কী হল যে আমার অসুখের কথায় সে কাতর হয়ে গেল! আমি মনে মনে ভাবতে থাকি, হলে হোক ডায়াবেটিস! নাহিদা বেগমের ভালোবাসা তো ঘিরে থাকবে! আমার জন্য তার টেনশন তো বাড়বে।

আমি চাই আমার জন্য তার চোখে-মুখে টেনশন থাক। এসব ভাবতে ভাবতে আমি খুবই পুলকিত বোধ করতে থাকি।
আমাকে আজ জানতেই হবে। আমি তার পাশে বসলাম। তারপর জানতে চাইলাম, ‘আমার অসুখের কথা শুনে কী তোমার খুব খারাপ লাগছে? খুব টেনশন হচ্ছে? বুকের ভেতর যন্ত্রণা হচ্ছে? এতদিনে নিশ্চয় আমার কদর বুঝতে পেরেছ?’

আমার এতগুলো প্রশ্ন একসঙ্গে শুনে সে চোখ বড় বড় করে বলল, ‘আমি তোমার জন্য টেনশন করছি কে বলেছে? আমি আমার টেনশন করছি!’
‘হ্যাঁ, তা তো করবেই। আমার কিছু হলে তো তোমারই সমস্যা বেশি হবে।’‘আরে তা না!’
‘তাহলে কী?’

‘আমি দেখেছি, ডায়াবেটিস রোগীর জন্য রাতে রুটি বেলতে হয়। আমার সোজাসুজি কথা, আমি তোমার জন্য কোনো রুটি বানাতে পারব না!’
তার টেনশনের কথা শুনে আমার মাথা ঘুরতে লাগল।

আরও খবর

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত