দাওয়াইয়ের নাম হাসি
jugantor
দাওয়াইয়ের নাম হাসি

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৬ অক্টোবর ২০২০, ২০:১২:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

১ম বন্ধু : জাস্ট ফ্রেন্ড আর বেস্ট ফ্রেন্ডের মধ্যে পার্থক্য কী?
২য় বন্ধু : তুই কাদায় পা পিছলে পড়ে গেলে জাস্ট ফ্রেন্ড তোকে নিয়ে খুব হাসবে। আর বেস্ট ফ্রেন্ড কাদায় মাখা তোর ছবি তুলে সেটা ফেসবুকে আপলোড করে দেবে!

জনৈক ব্যক্তি : কমিশনার সাহেব কি বাসায় আছেন?
কমিশনারের সেক্রেটারি : তাকে কী দরকার?
জনৈক ব্যক্তি : আমার একটা চারিত্রিক সনদপত্র লাগবে।
সেক্রেটারি : তিন মাস পরে আসুন। কমিশনার সাহেব নারীঘটিত মামলায় ছয় মাসের জেলে আছেন। এর মধ্যে তিন মাস অতিবাহিত হয়েছে। তিন মাস পর এলেই তাকে পাওয়া যাবে আশা করি।

চল্লিশোর্ধ্ব এক নারী ও এক পুরুষ পার্কে একে অন্যের হাত ধরে বেশ রোমান্টিক ভঙ্গিতে বসে আছে। তাই দেখে এক পুলিশ এসে জানতে চাইল, ‘আমি আপনাদের নিষেধ করছি না। শুধু জানতে চাচ্ছি আপনারা কারা?’
জবাবে পুরুষ ভদ্রলোক বললেন, ‘আমরা স্বামী-স্ত্রী।’
পুলিশ : বাহ্! এত বছর সংসার করেও আপনাদের ভালোবাসা এতটুকু কমেনি। আজকাল তো এমন দেখাই যায় না। এটা কীভাবে সম্ভব!
পুরুষ : না মানে, আমি একজনের স্বামী আর ও অন্য একজনের স্ত্রী! তাই সম্ভব হয়েছে আর কী!

বাবা : রোজ তোর মা সামান্য ব্যাপার নিয়ে চিৎকার-চেঁচামেচি করে! অথচ আজ এত চুপচাপ কেন রে?
ছেলে : আমার জন্যই এমন হয়েছে। মা আমাকে বলেছিল তার লিপস্টিকটা দিতে। আমি ভুল করে শুনেছি গ্লু স্টিক! ব্যস, গ্লু লাগিয়ে ঠোঁট জোড়া লেগে গেছে!
বাসা : সাবাশ! গড ব্লেস ইউ সন!

গ্রন্থনা : রাফিয়া আক্তার

দাওয়াইয়ের নাম হাসি

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৬ অক্টোবর ২০২০, ০৮:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

১ম বন্ধু : জাস্ট ফ্রেন্ড আর বেস্ট ফ্রেন্ডের মধ্যে পার্থক্য কী?
২য় বন্ধু : তুই কাদায় পা পিছলে পড়ে গেলে জাস্ট ফ্রেন্ড তোকে নিয়ে খুব হাসবে। আর বেস্ট ফ্রেন্ড কাদায় মাখা তোর ছবি তুলে সেটা ফেসবুকে আপলোড করে দেবে!

জনৈক ব্যক্তি : কমিশনার সাহেব কি বাসায় আছেন?
কমিশনারের সেক্রেটারি : তাকে কী দরকার?
জনৈক ব্যক্তি : আমার একটা চারিত্রিক সনদপত্র লাগবে।
সেক্রেটারি : তিন মাস পরে আসুন। কমিশনার সাহেব নারীঘটিত মামলায় ছয় মাসের জেলে আছেন। এর মধ্যে তিন মাস অতিবাহিত হয়েছে। তিন মাস পর এলেই তাকে পাওয়া যাবে আশা করি।

চল্লিশোর্ধ্ব এক নারী ও এক পুরুষ পার্কে একে অন্যের হাত ধরে বেশ রোমান্টিক ভঙ্গিতে বসে আছে। তাই দেখে এক পুলিশ এসে জানতে চাইল, ‘আমি আপনাদের নিষেধ করছি না। শুধু জানতে চাচ্ছি আপনারা কারা?’
জবাবে পুরুষ ভদ্রলোক বললেন, ‘আমরা স্বামী-স্ত্রী।’
পুলিশ : বাহ্! এত বছর সংসার করেও আপনাদের ভালোবাসা এতটুকু কমেনি। আজকাল তো এমন দেখাই যায় না। এটা কীভাবে সম্ভব!
পুরুষ : না মানে, আমি একজনের স্বামী আর ও অন্য একজনের স্ত্রী! তাই সম্ভব হয়েছে আর কী!

বাবা : রোজ তোর মা সামান্য ব্যাপার নিয়ে চিৎকার-চেঁচামেচি করে! অথচ আজ এত চুপচাপ কেন রে?
ছেলে : আমার জন্যই এমন হয়েছে। মা আমাকে বলেছিল তার লিপস্টিকটা দিতে। আমি ভুল করে শুনেছি গ্লু স্টিক! ব্যস, গ্লু লাগিয়ে ঠোঁট জোড়া লেগে গেছে!
বাসা : সাবাশ! গড ব্লেস ইউ সন!

গ্রন্থনা : রাফিয়া আক্তার