একটি মাস্কের সাক্ষাৎকার
jugantor
পাঠকবাড়ি রসের হাঁড়ি
একটি মাস্কের সাক্ষাৎকার

  মো. ফেরদৌস আহাদি  

২৪ জুলাই ২০২১, ২১:১৮:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

বিচ্ছু : কেমন আছেন?
মাস্ক : ভালো থাকতে দিলেন কোথায়?
বিচ্ছু : ক্যান ভাই?
মাস্ক : আমার ইউজটাই তো আজ পর্যন্ত শিখতে পারলেন না। আফসোস!
বিচ্ছু : দুঃখিত! আসলে হয়ছে কী, সারাক্ষণ আপনাকে মুখে লাগিয়ে রাখলে দম বন্ধ হয়ে আসতে চায়।
মাস্ক : এসব বলে রক্ষা হবে না। ভালো হয়ে যান। এখনো সময় আছে।
বিচ্ছু : তা ঠিক তা ঠিক! তো আপনার দিনকাল কেমন যাচ্ছে?
মাস্ক : ভালো না।
বিচ্ছু : কেন?
মাস্ক : এই যে, আপনারা মানুষ জাতি আমাদের অকেজো করে ঘরে ফেলে রাখেন! পকেটে ডুকিয়ে রাখেন! ব্যাগে ঢুকিয়ে রাখেন! এটা কি ঠিক বলেন! এইভাবে বন্দি থাকতে থাকতে দম বন্ধ হয়ে আসে!
বিচ্ছু : খুব খারাপ! খুব খারাপ!
মাস্ক : আপনি তো খারাপ বলেই খালাস! ওদিকে আপনাদের কারণে অনেক সময় আমাদের জীবন-মরণ প্রশ্ন!
বিচ্ছু : সেটা কীভাবে?
মাস্ক : আপনাকে যদি দুটি পিলারের মাঝে হাত একদিকে আর পা আরেক দিকে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখা হয় কেমন লাগবে?
বিচ্ছু : খুব খারাপ হবে। হাত-পা ছিঁড়ে আলাদাও হয়ে যেতে পারে!
মাস্ক: আপনারা তো সেই খারাপ কাজটাই করেন আমাদের সঙ্গে। আমাদের আপনারা প্রতিনিয়ত ঝুলিয়ে রেখে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেন!
বিচ্ছু : এটা কীভাবে?
মাস্ক: এই যে, মুখে না লাগিয়ে থুতনিতে লাগিয়ে রাখেন! কখনো এক কানে ঝুলিয়ে রাখেন!
বিচ্ছু : ডাবল ভেরি ব্যাড। জাতির উদ্দেশে কিছু বলেন।
মাস্ক: আপনারা মাস্ক পকেটে ঢুকিয়ে না রেখে মুখে লাগিয়ে রাখুন। আপনারাও বাঁচুন, আমাদেরও বাঁচতে দিন।
বিচ্ছু : ধন্যবাদ, আমাদের সময় দেওয়ার জন্য।
মাস্ক : আপনাকেও ধন্যবাদ। পকেট থেকে মাস্কটা বের করে পরে ফেলুন।
বিচ্ছু : আপনি আমাকে লজ্জায় ফেলে দিলেন। ঠিক আছে ভাই, পরে নিলাম। আর ভুল হবে না।
ঠিকানা : নিকলী, কিশোরগঞ্জ।

পাঠকবাড়ি রসের হাঁড়ি

একটি মাস্কের সাক্ষাৎকার

 মো. ফেরদৌস আহাদি 
২৪ জুলাই ২০২১, ০৯:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিচ্ছু : কেমন আছেন?
মাস্ক : ভালো থাকতে দিলেন কোথায়?
বিচ্ছু : ক্যান ভাই?
মাস্ক : আমার ইউজটাই তো আজ পর্যন্ত শিখতে পারলেন না। আফসোস! 
বিচ্ছু : দুঃখিত! আসলে হয়ছে কী, সারাক্ষণ আপনাকে মুখে লাগিয়ে রাখলে দম বন্ধ হয়ে আসতে চায়।
মাস্ক : এসব বলে রক্ষা হবে না। ভালো হয়ে যান। এখনো সময় আছে।
বিচ্ছু : তা ঠিক তা ঠিক! তো আপনার দিনকাল কেমন যাচ্ছে?
মাস্ক : ভালো না।
বিচ্ছু : কেন?
মাস্ক : এই যে, আপনারা মানুষ জাতি আমাদের অকেজো করে ঘরে ফেলে রাখেন! পকেটে ডুকিয়ে রাখেন! ব্যাগে ঢুকিয়ে রাখেন! এটা কি ঠিক বলেন! এইভাবে বন্দি থাকতে থাকতে দম বন্ধ হয়ে আসে!
বিচ্ছু : খুব খারাপ! খুব খারাপ!
মাস্ক : আপনি তো খারাপ বলেই খালাস! ওদিকে আপনাদের কারণে অনেক সময় আমাদের জীবন-মরণ প্রশ্ন!
বিচ্ছু : সেটা কীভাবে?
মাস্ক : আপনাকে যদি দুটি পিলারের মাঝে হাত একদিকে আর পা আরেক দিকে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখা হয় কেমন লাগবে?
বিচ্ছু : খুব খারাপ হবে। হাত-পা ছিঁড়ে আলাদাও হয়ে যেতে পারে! 
মাস্ক: আপনারা তো সেই খারাপ কাজটাই করেন আমাদের সঙ্গে। আমাদের আপনারা প্রতিনিয়ত ঝুলিয়ে রেখে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেন!
বিচ্ছু : এটা কীভাবে?
মাস্ক: এই যে, মুখে না লাগিয়ে থুতনিতে লাগিয়ে রাখেন! কখনো এক কানে ঝুলিয়ে রাখেন!
বিচ্ছু : ডাবল ভেরি ব্যাড। জাতির উদ্দেশে কিছু বলেন।
মাস্ক: আপনারা মাস্ক পকেটে ঢুকিয়ে না রেখে মুখে লাগিয়ে রাখুন। আপনারাও বাঁচুন, আমাদেরও বাঁচতে দিন।
বিচ্ছু : ধন্যবাদ, আমাদের সময় দেওয়ার জন্য। 
মাস্ক : আপনাকেও ধন্যবাদ। পকেট থেকে মাস্কটা বের করে পরে ফেলুন।
বিচ্ছু : আপনি আমাকে লজ্জায় ফেলে দিলেন। ঠিক আছে ভাই, পরে নিলাম। আর ভুল হবে না। 
ঠিকানা : নিকলী, কিশোরগঞ্জ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন