ঝড়ো ফিফটির পর মাহমুদউল্লাহর বিদায়

  স্পোর্টস ডেস্ক ১৯ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:২২ | অনলাইন সংস্করণ

২৬ বলে ৫০ রান করে সাজঘরে ফেরেন রিয়াদ।
২৬ বলে ৫০ রান করে সাজঘরে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ছবি: সংগৃহীত

ঝড়ো ফিফটির পর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বিদায়। ২১৫ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর তাড়া করতে নেমে ১৮ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে যাওয়া দলকে খেলায় ফেরান অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

চতুর্থ উইকেটে ব্রান্ডন টেইলরকে সঙ্গে নিয়ে ৬৮ রানের জুটি গড়েন মাহমুদউল্লাহ।

১৬ বলে ২৮ রান করে নাঈম হাসানের ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত টেইলর। তার বিদায়ের পর দলের পরাজয় এড়াতে আরিফুলকে সঙ্গে নিয়ে লড়াই চালিয়ে যান রিয়াদ। ২৫ বলে তিন চার ও চারটি দৃষ্টিনন্দন ছক্কায় অর্ধশতক রান পূর্ণ করে ক্যামেরন ডেলপোর্টের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন মাহমুদউল্লাহ।

রাহীর বোলিং তোপে বিপর্যয়ে খুলনা

২১৫ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৮ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে খুলনা টাইটাস। ইনিংসের শুরুতেই খুলনার হার্ডহিটার ওপেনার পল স্টারলিংয়ের উইকেট তুলে নেন আবু জায়েদ রাহীর। এরপর তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা আল-আমিনকেও ফেরান আবু জায়েদ। অন্য ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকী ফেরেন খালিদ হাসানের শিকার হয়ে।

খুলনার বিপক্ষে চিটাগাংয়ের রানের পাহাড়

মুশফিকুর রহিমের ঝড়ো ব্যাটিং আর ইয়াসির আলীর কার্যকর ইনিংসে ২১৪ রানের পাহাড় গড়েছে চিটাগাং ভাইকিংস। এছাড়াও লংকান ব্যাটসম্যান দাসুন শানাকা এবং মোহাম্মদ শেহজাদের টর্নেডো ব্যাটিং চিটাগাং ভাইকিংসকে বড় স্কোর গড়তে বিশেষ সহায়ক হয়েছে।

শনিবার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিপিএলের ২২তম ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন খুলনা টাইটানসের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ৪ ‍উইকেট হারিয়ে ২১৪ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে মুশফিকবাহিনী। বিপিএলের চলমান এ আসরে এটিই দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড।

মুশফিক ৩৩ বলে ৫২ রান করেন। তার ইনিংসটি ছিল ৮টি চার ও একটি দৃষ্টিনন্দন ছক্কায় সাজানো। ১৭ বলে ৪২ রান করে অপরাজিত থাকেন শানাকা। তার ইনিংসটি ছিল ৪টি ছক্কা ও তিনটি চারে সাজানো।

তবে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতে নামা শেহজাদই মূলত এ বিশাল স্কোরের ইঙ্গিত দেন। তাইজুলকে পরপর দুটি বিশাল ছক্কা হাঁকিয়ে শেষ পর্যন্ত ১৭ বলে ৩৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন আফগান এ ব্যাটসম্যান।

তিন নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নামা ইয়াসির আলীকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব চালান চিটাগাংয়ের আফগানিস্তানের ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদ। প্রথম ৯ বলে তিন রান করা এই ওপেনার, চতুর্থ ওভারে শরিফুলের বলে দুটি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান।

এরপর পঞ্চম ওভারে এক বল খেলার সুযোগ পেয়ে বাউন্ডারি হাঁকান শুভাশীষ রায়কে। ঠিক পরের ওভারে তাইজুল ইসলামকে পরপর দুই ছক্কা হাঁকান শেহজাদ। ঠিক পরের বলে উইকেটকিপার ব্রান্ডন টেইলরের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন চিটাগাংয়ের এই ওপেনার। সাজঘরে ফেরার আগে ১৭ বলে তিন চার ও সমান ছক্কায় ৩৩ রান করেন শেহজাদ।

চার নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে ইয়াসির আলীকে সঙ্গে নিয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৮৩ রানের জুটি গড়েন মুশফিকুর রহিম।

৩৬ বলে পাঁচ চার ও তিন ছক্কায় ৫৪ রান করে ডেভিড ওয়াইজের বলে ক্যাচ তুলে ফেরেন ইয়াসির। এর আগে দুই ম্যাচ খেলে ৪১ ও ৪ রান করেন চিটাগাংয়ের এই স্থানীয় ক্রিকেটার।

তার বিদায়ের পর দুর্দান্ত খেলতে থাকা মুশফিকুর রহিম ২৯ বলে ফিফটি তুলে নেয়ার পর উইকেট হারান। ডেভিড ওয়াইজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ৩৩ বলে আট চার ও এক ছক্কায় ৫২ রান করেন মুশফিকুর রহিম। এর আগের ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচ জয়ী ৭৫ রানের ইনিংস খেলেন মুশফিকুর রহিম।

ইনিংসের শেষ দিকে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে দলকে চ্যালেঞ্জিং স্কোর উপহার দেন দাসুন শানাকা। মাত্র ১৭ বলে তিন চার ও চার ছক্কায় ৪২ রান করে অপরাজিত থাকনে চিটাগাংয়ের এই শ্রীলংকান। ৫ বলে ১৬ রান করেন নজিবুল্লাহ জাদরান।

ঘটনাপ্রবাহ : খুলনা টাইটানস: বিপিএল ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×