লক্ষ্য যখন ইঞ্জিনিয়ারিং: পড়তে পারেন আইইউবিএটিতে

  যুগান্তর ডেস্ক ২৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৯:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

আইইউবিএটি ক্যাম্পাস। ছবি: যুগান্তর
আইইউবিএটি ক্যাম্পাস। ছবি: যুগান্তর

বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় একজন শিক্ষার্থীকে সবচেয়ে কঠিন বাঁধাটি অতিক্রম করতে হয় এইচএসসি পাশ করার পর উচ্চ শিক্ষার প্রবেশ মুখে। দীর্ঘ দশ-বার বছরের লালিত স্বপ্ন বাস্তবে রূপ পাবে কি পাবে না, তা নির্ধারিত হয় এ পর্বে। তাছাড়া ভবিষ্যতের উজ্জ্বল ক্যরিয়ার এ সময়ের নির্ভুল সিদ্ধান্তের উপরেই নির্ভর করে।

এসব কারণে বহু শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকগণ নানা দুশ্চিন্তায় পড়ে যান এইচএসসি উত্তর সময়টাতে। ক্যারিয়ার বিষয়ক সিদ্ধান্তের সিংহভাগ গৃহীত হয় ব্যক্তির উচ্চ শিক্ষার উপর ভিত্তি করে। এ কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশের অনেক পূর্বেই উচ্চশিক্ষা বিষয়ক ভাবনা শিক্ষার্থী ও তার অভিভাবকের মনে জন্ম নেওয়া দরকার।

এইচএসসি পাশের পূর্বেই অর্থাৎ স্কুল পূর্বেই যদি ‘ক্যারিয়ার: বিকশিত জীবনের দ্বার’ একজন অভিভাবক কিংবা শিক্ষার্থীর হাতে যায় তাহলে এইচএসসি উত্তর উচ্চ শিক্ষা বিষয়ক যে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হয় সেটিতে অনেক সুবিধা হবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

বর্তমান এই আধুনিক যুগে প্রকৌশলী হিসেবে নিজের ক্যারিয়ার গড়তে অনেক শিক্ষার্থীই স্বপ্ন বুনে থাকে। স্বপ্ন পৌঁছে যায় প্রকৌশলীর দিকে। কেননা বর্তমান বিশ্বে প্রকৌশলীর রয়েছে ব্যাপক কদর।একটি দেশের অবকাঠামো বিনির্মাণ ও উন্নয়নে প্রকৌশলীর অবদান কিন্তু কম নয়। এইচএসসি পরীক্ষা শেষ হওয়ার পথে। এদের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রয়েছে প্রচুর শিক্ষার্থী যারা নিজেকে প্রকৌশলী হিসেবে দেখতে চায়।

বর্তমানে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ বিজনেস এগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি) অন্যতম।

আইইউবিএটির সময় উপযোগী আধুনিক, বিজ্ঞান সম্মত শিক্ষার পাঠদান পদ্ধতি শিক্ষার্থীদের কাছে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। আইইউবিএটির সার্বিক লক্ষ্য হচ্ছে উপযুক্ত শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও দিকনির্দেশনার মাধ্যমে মানব সম্পদ উন্নয়ন ও জ্ঞান চর্চা যার মাধ্যমে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর ও আইবিএ-এর সাবেক পরিচালক এবং শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. এম আলিমউল্যা মিয়ান স্বনামধন্য এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আছে অনেক সুযোগ-সুবিধা। প্রতিটি বিভাগের প্রতিটি ক্লাসরুম মাল্টিমিডিয়াসমৃদ্ধ।

প্রতিটি ফ্লোরে আছে ডিজিটাল নোটিশ বোর্ড। আইইবি মেম্বারশিপ প্রাপ্ত সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য আছে বিশেষ ড্রয়িং ক্লাস। কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, বিভাগের জন্য আলাদা ল্যাব আছে।

লাইব্রেরির সামনে পত্রিকা পড়ার ১০টি টেবিলে প্রতিদিন ১০টি ইংরেজি পত্রিকা থাকে। সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৭.০০ পর্যন্ত চালু থাকে লাইব্রেরি। রেফারেন্স বই আছে ২৫ হাজার। আরও আছে তিন হাজার ই-বুক, ৯০০ জার্নাল, ই-জার্নাল আছে ৩৫০টি। প্রতিদিন ক্যাম্পাস থেকে নিজস্ব বাস চলাচল করে। শিক্ষার্থীদের জন্য এই বাস সম্পূর্ণ ফ্রি।

প্রতিদিন এক ঘণ্টা পর পর শার্টল সার্ভিসের মাধ্যমে ক্যাম্পাসের আসে পাশের এলাকা হতে শিক্ষার্থীদের আনা-নেওয়া করে। আর ঢাকা সিটি কর্পোরেশন, সাভার গাজীপুর এবং নারায়ণঞ্জ হতে প্রতিদিন সকাল ৭টায় ক্যাম্পাসের উদ্দেশ্যে বাসগুলো ছেড়ে আসে এবং সন্ধ্যা ৫.৩০ ক্যাম্পাস থেকে নিদির্ষ্ট গন্তব্যে ছেড়ে যায়।

এছাড়াও শিক্ষার্থীদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা, ক্রেডিট ট্রান্সফার, স্কলারশীপ, অনুদান, বেতন মওকুফ, শিক্ষাকালীন কর্মসংস্থান এবং শিক্ষা ঋণের মাধ্যামে আর্থিক সহায়তা তো আছেই। আইইউবিএটির স্থায়ী ক্যাম্পাস উত্তরায় ১০ নম্বর সেক্টরে গেলেই দেখা যাবে ১৭ বিঘা জমির উপর সুবিশাল ক্যাম্পাস।

চাকরির বাজারে আইইউবিএটির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে পাশ করা গ্রাজুয়েটদের চাহিদা অনেক। আইইউবিএটির সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নামিদামি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর রয়েছে শিক্ষার্থী বিনিময় প্রকল্প শীর্ষক সমঝোতা চুক্তি।

এ প্রকল্পের আওতায় প্রতি বছরই ইঞ্জিনিয়ারিং, বিভাগের কোনো না কোনো শিক্ষার্থী বিদেশের কোনো না কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যায়। পড়াশুনা শেষ করে তারা দেশে বিদেশে সুনামের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে।

ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি) সফলতার ২৭ বছর প‚র্ণ করেছে। সর্বপরি আইইউবিএটি কোন ভবন নয় বরং শিক্ষার্থীদের জন্য সম্পূর্ণ সুযোগ সুবিধা সম্বলিত সুবিস্তির্ন একটি পূর্ণাঙ্গ গ্রীণ ক্যাম্পাস।

আর এই পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাসে জন্য ধন্যবাদ পেয়েছে স্বয়ং শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে। হয়ত অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ঘুরে দেখেছেন, একবার এই ক্যাম্পাসটিও ঘুরে আসতে পারেন। আরও জানতে কল করতে পারেন ০১৭২৮ ৭১৬ ৯৬০ অথবা ভিজিট করতে পারেন www.iubat.edu, www.facebook.com/IUBAT এই ঠিকানায়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×