রাবি শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে ছাত্রলীগের চাঁদা দাবি

  রাজশাহী ব্যুরো ১৩ মার্চ ২০১৯, ২১:৩৮ | অনলাইন সংস্করণ

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এক শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগের ৪ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

বুধবার দুপুরে তুচ্ছ কারণে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কাছে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করা হয় বলে অভিযোগ করেন ওই শিক্ষার্থী।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের ২০১৮-১৯ সেশনের প্রথম বর্ষের মো. জাকির রেদওয়ান। তার বাসা লালমনিরহাট বলে জানা গেছে।

অভিযুক্তরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মিশু, সহ-সম্পাদক আল মামুন, ছাত্রলীগ কর্মী ও ফারসী বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাফিউর রহমান সাফি, আল-আমিন। তারা সবাই শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর অনুসারী বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী জানান, দীর্ঘ দিন যাবৎ ফেসবুকে এক অপরিচিত মেয়ের সঙ্গে তার ম্যাসেঞ্জারে কথা হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে গড়ে সম্পর্ক ওঠে। এসব কথা ছাত্রলীগ নেতা আল-আমিন ভাইকে জানান তিনি। পরে শেরে বাংলা হলে ২১৯ নম্বর কক্ষে বর্তমান কমিটির উপ-প্রচার সম্পাদক বাদশার রুমে দেখা করতে বলেন তাকে।

তিনি জানান, ওই দিন দুপুরে তিনি সেই রুমে যান। মেহেদী হাসান মিশু, সাফিউর রহমান সাফি, আল-আমিন তাকে বলেন- ‘অনেক বড় অপরাধ করে ফেলেছিস। এখান থেকে বাঁচতে হলে ২০ হাজার টাকা দিতে হবে। আর না হলে প্রক্টরকে জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হবে।’ টাকা দিতে অসম্মতি জানানে তারা ১৫ হাজার টাকা দাবি করে।

জাকির রেদওয়ান জানান, এক পর্যায়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে শেরে বাংলা হল থেকে মোটরসাইকেলে নিয়ে বিনোদপুরের একটি মেসে নিয়ে যায় তাকে। বিকাশে থাকা ৪ হাজার তারা প্রায় জোর করে তুলে নেন। বাকিটা পরে দিতে বলে। তার পর থেকে কিছুক্ষণ পর পর মোবাইলে ফোনে হুমকি দিতে থাকে। প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা বলার সময় অভিযুক্তরা ফোনে ও মোবাইলে মেসেজ করতে দেখা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান মিশু বলেন, ওই শিক্ষার্থী সমস্যায় পড়েছিল তার সঙ্গে কথা বলেছি। চাঁদা দাবি ও আদায়ের বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

ছাত্রলীগ কর্মী সাফিও চাঁদা দাবির বিষয়ে জানেন না বলে দাবি করে বলেন, আমার মোটরসাইকেল আছে তাই ব্যবহার করা হচ্ছে। এদিকে অভিযুক্ত অন্য দুজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু যুগান্তরকে বলেন, এক শিক্ষার্থীর নিকট চাঁদাদাবির বিষয়টি শুনেছি। খোঁজ খবর নেয়ার চেষ্টা করছি।

ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন যুগান্তরকে বলেন, ছাত্রলীগ শিক্ষার্থী বান্ধব সংগঠন। কেউ যদি চাঁদাদাবি করে তার প্রমাণ পেলে তার সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর
-

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×