দ্বিতীয় দিনের মতো ৭ কলেজের শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ

প্রকাশ : ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:২১ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

আন্দোলনে সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। ছবি: যুগান্তর

পাঁচ দফা দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো ফের রাজপথে নেমেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।  

বুধবার বেলা ১১টার দিকে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ করেছেন সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে। 

শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবি হচ্ছে- পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে ত্রুটিমুক্ত ফল প্রকাশসহ একটি বর্ষের সব বিভাগের ফল একসঙ্গে প্রকাশ; ডিগ্রি, অনার্স ও মাস্টার্সের ফলে গণহারে অকৃতকার্য হওয়ার কারণ প্রকাশসহ খাতার পুনঃমূল্যায়ন; সাত কলেজ পরিচালনার জন্য স্বতন্ত্র প্রশাসনিক ভবন; প্রতি মাসে প্রতিটি কলেজে প্রত্যেক বিভাগে দুদিন করে ১৪ দিন ঢাবির শিক্ষকদের ক্লাস নেয়া এবং সেশনজট নিরসনে একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশসহ ক্রাশ প্রোগ্রাম চালু করা।

এর আগে মঙ্গলবার রাজধানীর নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করেন। বেলা ১১টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত কর্মসূচি চলার সময় ওই এলাকায় ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়।

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী, বেলা ১১টার আগে ঢাকা কলেজের সামনে মানববন্ধনে অংশ নেন তারা। পরে তারা নীলক্ষেত মোড়ে এসে সড়কের ওপর বসে পড়েন। ফলে ওই পথে চলাচলকারী সব ধরনের যান বন্ধ হয়ে যায়। 

এ সময় শিক্ষার্থীরা ‘গণহারে আর ফেল নয়, যথাযথ রেজাল্ট চাই’, ‘শিক্ষা কোনো পণ্য নয়, শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা নয়’, ‘গণহারে ফেল, ঢাবি তোমার খেল’, ‘বন্ধ করো অনাচার, সাত কলেজের আবদার’, ‘নিচ্ছ টাকা দিচ্ছ বাঁশ, সময় শেষে সর্বনাশ’- এ ধরনের স্লোগান ছাড়াও এই লেখাসংবলিত বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করা হয়।

প্রসঙ্গত শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ২০১৭ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, সরকারি বাঙলা কলেজকে ঢাবির অধিভুক্ত করা হয়। 

ওই বছর পরীক্ষার রুটিনের দাবিতে আন্দোলনে গিয়ে দুই চোখ হারান তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমান। শুরু থেকেই এই অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।