পরিবর্তনের প্রত্যয়ে কাজ করছে অ্যাক্টিভ সিটিজেনস

  যুগান্তর ডেস্ক ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

পরিবর্তনের প্রত্যয়ে কাজ করছে অ্যাক্টিভ সিটিজেনস

নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে 'উইংস অব ইভ' প্রকল্পের কার্যক্রম। নারীর প্রতি যৌন সহিংসতা, স্বাস্থ্যকর প্রজনন সম্পর্কিত উন্মুক্ত আলোচনাকে আমাদের দেশে এখনো জটিল এবং লজ্জাজনক বিষয় হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

তারপরও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী সব বাধা পেরিয়ে গর্ভাশয়ের ক্যান্সার, নারীর প্রতি যৌন নির্যাতন এবং স্বাস্থ্যকর প্রজনন সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করে যাচ্ছেন এবং সেই সঙ্গে সমাজে বিদ্যমান প্রতিষিদ্ধ ধারনাসমূহ ভাঙতেও কাজ করে যাচ্ছেন তাঁরা।

'উইংস অব ইভ' প্রকল্পটি ব্রিটিশ কাউন্সিলের একটি ফ্ল্যাগশিপ প্রোগ্রামের অধীনস্থ অ্যাক্টিভ সিটিজেনস ইয়ুথ ট্রেনিং কার্যক্রমের শততম ব্যাচ দ্বারা পরিচালিত। বাংলাদেশে প্রতিবছর গর্ভাশয়ের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গড়ে ১৮ জন নারী মৃত্যুবরণ করেন।

নিম্ন আয়ের মানুষ সবচেয়ে বেশি এ রোগের ঝুঁকিতে রয়েছে। অন্যদিকে এ রোগের চিকিৎসা ব্যয়ও অনেক; যা নিম্ন আয়ের মানুষের পক্ষে বহন করা প্রায় অসম্ভব।

এ প্রকল্পটি চালু করার পর গর্ভাশয়ের ক্যান্সার প্রতিরোধে রোটারি ইন্টারন্যাশনাল এবং রাজশাহী ক্যান্সার হাসপাতাল ও গবেষণা কেন্দ্র ট্রাস্টের সহায়তায় শিক্ষার্থীদের এ দলটি মাত্র ২০০ টাকায় টিকা (ভ্যাকসিন) সরবরাহ করতে সক্ষম হয়েছে, যা মূল দামের এক দশমাংশেরও কম।

ইতিমধ্যে পাঁচটি ভিন্ন ইভেন্টের মাধ্যমে তিন শতাধিক নারী এ টিকা গ্রহণ করেছেন, যা অ্যাক্টিভ সিটিজেনসের বড় একটি সাফল্য বলে তারা মনে করছেন।

অ্যাক্টিভ সিটিজেনস মূলত সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীদের নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসমূহকে তাদের কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করে থাকে এবং এই প্রতিষ্ঠানসমূহ থেকে নেতৃত্ব দিতে সক্ষম এরকম ব্যক্তিদের বের করে আনতে চেষ্টা করে।

অ্যাক্টিভ সিটিজেনসের কর্মসূচিগুলো মূলত একটি পাঠ্যক্রম যা ভিন্ন ভিন্ন প্রজেক্টের মাধ্যমে বিভিন্ন কমিউনিটির ক্ষমতায়ন এবং উন্নয়নের মধ্যে একটি বন্ধন গড়ে তোলে। এসব কর্মসূচি আন্তসাস্কৃতিক যোগাযোগ বৃদ্ধি, বিভিন্ন সমস্যা ও সংকট সমাধান এবং কমিউনিটির সঙ্গে সম্পৃক্ততার ক্ষেত্রে পরামর্শ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

গত দশ বছর ধরে বিভিন্ন সামাজিক পরিবর্তন নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে ব্রিটিশ কাউন্সিল অ্যাকটিভ সিটিজেনস। কর্মসূচিটির উদ্দেশ্য হচ্ছে, সাধারণ মানুষের ক্ষমতায়ন ও গোষ্ঠীর টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে মানুষের শান্তিপূর্ণ এবং ফলপ্রসূ সম্পৃক্ততা নিশ্চিত করা।

ব্রিটিশ কাউন্সিলের এ কর্মসূচিটি শুধু বাংলাদেশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। এর কার্যক্রম যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহর থেকে শুরু করে কেনিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত বিস্তৃত। অ্যাকটিভ সিটিজেনসের অংশগ্রহণকারীরা কমিউনিটি পর্যায়ে বিশ্বের ৭৫টি দেশে ১১ হাজারেরও বেশি সামাজিক কর্মসূচি পরিচালনা করেছে।

এসব কার্যক্রমের মাধ্যমে তারা মানুষের জীবনযাত্রা পরিবর্তনের পাশাপাশি বিশ্বকে বসবাস উপযোগী করতে সাহায্য করছে। পৃথিবী বদলে ফেলা অসম্ভব মনে হলেও বাস্তবে তা নয়।

সঠিক মানুষ এবং সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের মাধ্যমে যে কেউই পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। যেমনটা বলেছেন হ্যারিয়েট টুবম্যান, "প্রতিটি বড় স্বপ্ন শুরু হয় একজন স্বপ্নদর্শী মানুষের মাধ্যমে। সর্বদা মনে রাখতে হবে, পৃথিবীতে পরিবর্তন আনার জন্য প্রয়োজনীয় শক্তি, ধৈর্য এবং উৎসাহ আপনার মধ্যে রয়েছে।"

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর
-

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×