৪ দিন ছুটিতে ৮ দিন বন্ধ থাকবে ইবির হল!

প্রকাশ : ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৪১ | অনলাইন সংস্করণ

  ইবি প্রতিনিধি

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ৪ দিনের ছুটি ঘোষণা করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) প্রশাসন।  তবে এ ছুটিতে আবাসিক হলসমূহ বন্ধ থাকবে ৮ দিন।

৩ নভেম্বর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত হল বন্ধের সুপারিশ করেছে হল প্রভোস্ট কাউন্সিল।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এসএস আবদুল লতিফ।

এদিকে হল বন্ধের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে শিক্ষার্থীরা।  রাত ৭টার দিকে জিয়া মোড় থেকে বিভিন্ন হলের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী বিক্ষোভ মিছিল করেন।

মিছিলটি ক্যাম্পাস ঘুরে জিয়া মোড়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে।  এ সময় তারা হল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এসএস আবদুল লতিফ বলেন, সোমবার প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভায় পূজার ছুটিতে আবাসিক হল বন্ধ রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়ে ভিসির নিকট সুপারিশের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।  ভিসি স্যার ক্যাম্পাসের বাইরে থাকায় তিনি ক্যাম্পাসে এসে এ সুপারিশ অনুমোদন দিবেন।’

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি প্রফেসর ড. আকরাম হোসেন মজুমদার বলেন, ‘প্রশাসনের নির্দেশেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী ৬ থেকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত চারদিন ছুটি রয়েছে।  একই সঙ্গে ৩ ও ৪ এবং ১০ ও ১১ নভেম্বর সাপ্তাহিক ছুটি রয়েছে।  ৫ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি নির্বাহী ক্ষমতা বলে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেন।  পূজার ছুটির সঙ্গে সাপ্তাহিক ছুটি যোগ করে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে রেজিস্ট্রার অফিস।

৫ নভেম্বর সাধারণ ছুটি ঘোষণার ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ১১টি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।  ১২ নভেম্বর বিভিন্ন বিভাগে আরও ১৬টি পরীক্ষার সিডিউল রয়েছে জানিয়েছে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দফতর।

বিভিন্ন বিভাগের চলমান পরীক্ষা এবং ৮ দিনের জন্য হল বন্ধ করাতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।  হল খোলার পরদিনই পরীক্ষা থাকায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এসে তাতে অংশগ্রহণ করা কষ্টকর হবে বলে মনে করছেন শিক্ষার্থীরা।

হল বন্ধের এ সিদ্ধান্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনা।

এদিকে হল বন্ধের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণের পূর্বেই দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে ৩ তারিখ হল ছাড়ার নির্দেশ দিয়ে নোটিশ ঝুলানো হয়েছে।  এ নিয়েও সৃষ্টি হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।