মধুর ক্যান্টিনের সামনে হাতবোমা বিস্ফোরণ
jugantor
মধুর ক্যান্টিনের সামনে হাতবোমা বিস্ফোরণ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:৪৪:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মধুর ক্যান্টিনের সামনে হাতবোমা বিস্ফোরণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে আবারও হাতবোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে মধুর ক্যান্টিনের সামনের রাস্তার পাশে বিস্ফোরণটি হয়। তবে এতে কেউ হতাহত হননি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী। তিনি বলেন, যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় তাদের বের করার চেষ্টা চালাচ্ছি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাতবোমা বিস্ফোরিত হওয়ার সময় মধুর ক্যান্টিন ও ডাকসু ভবনের কাছেই সাদা পোশাকে দুজন পুলিশ অবস্থান করছিলেন। এক রিকশাওয়ালাও সেখান দিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে বিস্ফোরণে তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি।

নিউমার্কেট পুলিশ ফাঁড়ির এসআই রইস উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, কারা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বা কোথা থেকে ককটেলটি ছুড়ে মারা হয়েছে, তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে এতে কারও কোনো ক্ষতি হয়নি।

২৬ ডিসেম্বর থেকে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ওই দিন ছোট একটি বিস্ফোরণের পর মধুর ক্যান্টিন ও আইবিএ ভবনের গেটের মাঝামাঝি জায়গায় একটি অবিস্ফোরিত ককটেল পাওয়া যায়। পরে পুলিশ ককটেলটির নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ ঘটায়।

এর তিন দিন পর ২৯ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় মধুর ক্যান্টিনের সামনে তিনটি এবং বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ডাকসু ভবনের পাশে হাতবোমা ফাটানো হয়। পর দিন ফের মধুর ক্যান্টিনের সামনে দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে।

এর আগে ১ জানুয়ারি সকালে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশের কয়েক গজ দূরে একটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়।

মধুর ক্যান্টিনের সামনে হাতবোমা বিস্ফোরণ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০১:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মধুর ক্যান্টিনের সামনে হাতবোমা বিস্ফোরণ
ককটেল বিস্ফোরণ। ফাইল ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে আবারও হাতবোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে মধুর ক্যান্টিনের সামনের রাস্তার পাশে বিস্ফোরণটি হয়। তবে এতে কেউ হতাহত হননি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী। তিনি বলেন, যারা এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় তাদের বের করার চেষ্টা চালাচ্ছি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাতবোমা বিস্ফোরিত হওয়ার সময় মধুর ক্যান্টিন ও ডাকসু ভবনের কাছেই সাদা পোশাকে দুজন পুলিশ অবস্থান করছিলেন। এক রিকশাওয়ালাও সেখান দিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে বিস্ফোরণে তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি।

নিউমার্কেট পুলিশ ফাঁড়ির এসআই রইস উদ্দিন এ বিষয়ে বলেন, কারা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বা কোথা থেকে ককটেলটি ছুড়ে মারা হয়েছে, তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে এতে কারও কোনো ক্ষতি হয়নি।

২৬ ডিসেম্বর থেকে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। ওই দিন ছোট একটি বিস্ফোরণের পর মধুর ক্যান্টিন ও আইবিএ ভবনের গেটের মাঝামাঝি জায়গায় একটি অবিস্ফোরিত ককটেল পাওয়া যায়। পরে পুলিশ ককটেলটির নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরণ ঘটায়।

এর তিন দিন পর ২৯ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় মধুর ক্যান্টিনের সামনে তিনটি এবং বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে ডাকসু ভবনের পাশে হাতবোমা ফাটানো হয়। পর দিন ফের মধুর ক্যান্টিনের সামনে দুটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। 

এর আগে ১ জানুয়ারি সকালে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশের কয়েক গজ দূরে একটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন