আইআইইউসির ১০ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
আইআইইউসির ১০ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:০২:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

আইআইইউসি

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামে (আইআইইউসি) মারধরের ঘটনায় ভুক্তভোগী ছাত্র মাসুদুর রহমান আদনান বাদী হয়ে মামলা করেন।

বৃহস্পতিবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২, চট্টগ্রামে তিনি এ মামলা করেন। মামলার আসামি ১০ জন। তারা সবাই ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের ‘কথিত’ নেতা দাবি করেন।

আইন বিভাগের ছাত্র উচো অং মারমাকে ১নং আসামি করে মোট ১০ জনের বিরুদ্ধে ওই মামলা দায়ের করা হয়।

অভিযুক্ত বাকি আসামিরা হলেন- ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ছাত্র মশিউর রহমান মৃদুল, একই বিভাগের অনিক ইসলাম অনিক, ওমর ফারুক তুহিন, আব্দুল্লাহ আল নাঈম রবিন, আইন বিভাগের হাসান হাবিব মুরাদ, এমবিএ-এর ছাত্র শফিউল ইসলাম, ইকোনমিক্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের রবিউল হোছাইন রনি, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ছাত্র আব্দুল্লাহ আলম তাশরীফ এবং কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র মো. আফজাজুল হক অমি।

কোর’আনিক সাইন্সেস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২য় সেমিস্টারের ছাত্র মাসুদুর রহমান আদনান জানান, মামলাটি পিবিআই নিয়েছেন। আশা করি পিবিআইয়ের ওপর যদি কোনো ধরনের চাপ না আসে তাহলে সঠিক তদন্ত হবে এবং আসামিদের উপযুক্ত শাস্তি হবে। আর আমি ন্যায় বিচার পাব।

তিনি জানান, গত ২৭ জানুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উসমান (রা.) হলের আদনানকে শিবির সন্দেহে মারধর করেন ছাত্রলীগ পরিচয়ধারী কয়েকজন ছাত্র। পরে শিক্ষকেরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। এ ঘটনার জেরে ২৯ জানুয়ারি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পরে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জরুরি সিন্ডিকেট সভা ডেকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও ছাত্রদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়।

আইআইইউসির ১০ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৮:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আইআইইউসি
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম। ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামে (আইআইইউসি) মারধরের ঘটনায় ভুক্তভোগী ছাত্র মাসুদুর রহমান আদনান বাদী হয়ে মামলা করেন। 

বৃহস্পতিবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২, চট্টগ্রামে তিনি এ মামলা করেন। মামলার আসামি ১০ জন। তারা সবাই ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের ‘কথিত’ নেতা দাবি করেন। 

আইন বিভাগের ছাত্র উচো অং মারমাকে ১নং আসামি করে মোট ১০ জনের বিরুদ্ধে ওই মামলা দায়ের করা হয়। 

অভিযুক্ত বাকি আসামিরা হলেন- ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ছাত্র মশিউর রহমান মৃদুল, একই বিভাগের অনিক ইসলাম অনিক, ওমর ফারুক তুহিন, আব্দুল্লাহ আল নাঈম রবিন, আইন বিভাগের হাসান হাবিব মুরাদ, এমবিএ-এর ছাত্র শফিউল ইসলাম, ইকোনমিক্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের রবিউল হোছাইন রনি, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ছাত্র আব্দুল্লাহ আলম তাশরীফ এবং কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র মো. আফজাজুল হক অমি।

কোর’আনিক সাইন্সেস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ২য় সেমিস্টারের ছাত্র মাসুদুর রহমান আদনান জানান, মামলাটি পিবিআই নিয়েছেন। আশা করি পিবিআইয়ের ওপর যদি কোনো ধরনের চাপ না আসে তাহলে সঠিক তদন্ত হবে এবং আসামিদের উপযুক্ত শাস্তি হবে। আর আমি ন্যায় বিচার পাব।

তিনি জানান, গত ২৭ জানুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উসমান (রা.) হলের আদনানকে শিবির সন্দেহে মারধর করেন ছাত্রলীগ পরিচয়ধারী কয়েকজন ছাত্র। পরে শিক্ষকেরা এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। এ ঘটনার জেরে ২৯ জানুয়ারি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা মুখোমুখি অবস্থান নেয়। পরে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জরুরি সিন্ডিকেট সভা ডেকে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও ছাত্রদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন