র‌্যাগিং বন্ধে বুয়েটে ‘ভিজিল্যান্ট টিম’
jugantor
র‌্যাগিং বন্ধে বুয়েটে ‘ভিজিল্যান্ট টিম’

  ঢাবি প্রতিনিধি  

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২২:২৩:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) র‌্যাগিং বন্ধে ‘ভিজিল্যান্ট টিম’ গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। বুধবার রাতে একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যদি কোনো শিক্ষার্থী অন্য কোনো শিক্ষার্থী দ্বারা র‌্যাগিং বা এ ধরনের অসদাচরণের শিকার হন, তাহলে যে শিক্ষার্থী র‌্যাগিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকবে তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানতে চাইলে বুয়েটের একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন শিক্ষার্থীরা এসেছে, তাদের যেন কোনো ধরনের সমস্যা না হয়Ñ সেজন্য এই টিম গঠন করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, বুধবার রাতে আমরা তিনটা গ্র“প করে দিয়েছি। ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের অধীনে প্রতিটি হলে প্রাধ্যক্ষ ও সহকারী প্রাধ্যক্ষরা ২২ ফেব্র“য়ারি থেকে কাজ শুরু করবেন। আর এই টিম সার্বক্ষণিকভাবে সিসিটিভি ক্যামেরার ছবি পর্যবেক্ষণ করবে। যে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে টিম তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বুয়েটের এক শিক্ষার্থী বলেন, বিভিন্ন কারণে এ উদ্যোগ বেশিদিন কার্যকর থাকে না। তবে প্রশাসন যদি কোনো রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ ছাড়া স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে, তাহলে এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে। এ ধরনের পদক্ষেপ যদি আগে নেয়া হতো, তাহলে আবরার ফাহাদকে মৃত্যুবরণ করতে হতো না।

এর আগে ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর বুয়েটের সিএসই বিভাগের আবরার ফাহাদ নামে এক শিক্ষার্থীকে রাতভর নির্যাতন করে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের নেতারা। নির্যাতনে মারা যায় আবরার। তাই এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেজন্যই এই ‘ভিজিল্যান্ট টিম’ গঠন করা হয়েছে।

র‌্যাগিং বন্ধে বুয়েটে ‘ভিজিল্যান্ট টিম’

 ঢাবি প্রতিনিধি 
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) র‌্যাগিং বন্ধে ‘ভিজিল্যান্ট টিম’ গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। বুধবার রাতে একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যদি কোনো শিক্ষার্থী অন্য কোনো শিক্ষার্থী দ্বারা র‌্যাগিং বা এ ধরনের অসদাচরণের শিকার হন, তাহলে যে শিক্ষার্থী র‌্যাগিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকবে তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানতে চাইলে বুয়েটের  একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ও ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন শিক্ষার্থীরা এসেছে, তাদের যেন কোনো ধরনের সমস্যা না হয়Ñ সেজন্য এই টিম গঠন করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, বুধবার রাতে আমরা তিনটা গ্র“প করে দিয়েছি। ছাত্রকল্যাণ পরিচালকের অধীনে প্রতিটি হলে প্রাধ্যক্ষ ও সহকারী প্রাধ্যক্ষরা ২২ ফেব্র“য়ারি থেকে কাজ শুরু করবেন। আর এই টিম সার্বক্ষণিকভাবে সিসিটিভি ক্যামেরার ছবি পর্যবেক্ষণ করবে। যে কোনো অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে টিম তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বুয়েটের এক শিক্ষার্থী বলেন, বিভিন্ন কারণে এ উদ্যোগ বেশিদিন কার্যকর থাকে না। তবে প্রশাসন যদি কোনো রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ ছাড়া স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারে, তাহলে এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে। এ ধরনের পদক্ষেপ যদি আগে নেয়া হতো, তাহলে আবরার ফাহাদকে মৃত্যুবরণ করতে হতো না।

এর আগে ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর বুয়েটের সিএসই বিভাগের আবরার ফাহাদ নামে এক শিক্ষার্থীকে রাতভর নির্যাতন করে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের নেতারা। নির্যাতনে মারা যায় আবরার। তাই এ ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেজন্যই এই ‘ভিজিল্যান্ট টিম’ গঠন করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন