সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে না রাবি
jugantor
সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে না রাবি

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২৩:০৪:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে না রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)।

সোমবার বিকাল ৫টায় একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভা শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম আব্দুস সোবহান।

এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ড. মো. আশরাফুল ইসলাম খান বলেন, প্রশ্নের মান ও পরীক্ষার নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হলে প্রশ্ন ফাঁসের একটা আশংকা থাকে। তাই সার্বিক দিক বিবেচনা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের আরেক সদস্য আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসুদ বলেন, মেডিকেলগুলোর যেমন একসঙ্গে পরীক্ষা হয় সেভাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একসঙ্গে পরীক্ষা নিতে পারে। সে ক্ষেত্রে ১৯৭৩-এর অ্যাক্ট অনুযায়ী চলা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো, রুয়েট, বুয়েট আবার কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একসঙ্গে পরীক্ষা নিতে পারে। তাই বিকল্প পদ্ধতি চিন্তার জন্য মত দিয়েছি।

এ সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য এম আবদুস সোবহান বলেন, কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার কথা থাকলেও আমরা এবার সেখানে অংশগ্রহণ করছি না। মূলত একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্যদের মতামতের মাধ্যমেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইউজিসির সভায় যে বিষয় আলোচনা করা হয়েছিল তা আমি একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় তুলে ধরি। পরবর্তী সময়ে কাউন্সিলের সদস্যরা ইউজিসির সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন।

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে না রাবি

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে না রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি)।

সোমবার বিকাল ৫টায় একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভা শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এম আব্দুস সোবহান।

এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য ড. মো. আশরাফুল ইসলাম খান বলেন, প্রশ্নের মান ও পরীক্ষার নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা হলে প্রশ্ন ফাঁসের একটা আশংকা থাকে। তাই সার্বিক দিক বিবেচনা করে আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ বিষয়ে একাডেমিক কাউন্সিলের আরেক সদস্য আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসুদ বলেন, মেডিকেলগুলোর যেমন একসঙ্গে পরীক্ষা হয় সেভাবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একসঙ্গে পরীক্ষা নিতে পারে। সে ক্ষেত্রে ১৯৭৩-এর অ্যাক্ট অনুযায়ী চলা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো, রুয়েট, বুয়েট আবার কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একসঙ্গে পরীক্ষা নিতে পারে। তাই বিকল্প পদ্ধতি চিন্তার জন্য মত দিয়েছি।

এ সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য এম আবদুস সোবহান বলেন, কেন্দ্রীয়ভাবে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষার কথা থাকলেও আমরা এবার সেখানে অংশগ্রহণ করছি না। মূলত একাডেমিক কাউন্সিলের সদস্যদের মতামতের মাধ্যমেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইউজিসির সভায় যে বিষয় আলোচনা করা হয়েছিল তা আমি একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় তুলে ধরি। পরবর্তী সময়ে কাউন্সিলের সদস্যরা ইউজিসির সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন