চাকরি হারালেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষক
jugantor
চাকরি হারালেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষক

  ঢাবি প্রতিনিধি  

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:২০:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ৪ শিক্ষকসহ মোট ৫ জনকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

শিক্ষাছুটি ছাড়া বিদেশে অবস্থান করায় তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বলে একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

চাকরিচ্যুত শিক্ষকরা হলেন- পরিসংখ্যান বিভাগের সাহকারী অধ্যাপক মিসেস রাদিয়া তাইসির, পপুলেশন সাইন্সের ড. মো. কামরুল ইসলাম, পরিসংখ্যান গবেষণা ও শিক্ষা ইনস্টিটিউটের সকরারী অধ্যাপক মো. মহসীন এবং সহকারী অধ্যাপক মিসেস ইয়াসমিন আক্তার ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আজমেরী ফেরদৌস।

তবে এক সিন্ডিকেট সদস্য জানান, চাকরিচ্যুত শিক্ষকদের মধ্যে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আজমেরি ফেরদৌস স্বেচ্ছায় পদত্যাগের আবেদন করেছেন। বাকি শিক্ষকরা শিক্ষা ছুটি শেষ হলেও কাজে যোগদান করেনি। তাদের সবাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাওনা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে।

চাকরিচ্যুতের কারণ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এসব শিক্ষক বিদেশে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। আমরা তাদেরকে বারবার ফিরে আসতে অনুরোধ করেছি। কিন্তু তারা ফিরে আসেনি। তাই আমরা এ সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।

এর আগে একই অভিযোগে গত বছরের নভেম্বর মাসের ২৮ তারিখ পাঁচজন শিক্ষক ও সেপ্টেম্বর মাসের ২৯ তারিখ ২ জন শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা হয়।

চাকরি হারালেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ শিক্ষক

 ঢাবি প্রতিনিধি 
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২:২০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের ৪ শিক্ষকসহ মোট ৫ জনকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

শিক্ষাছুটি ছাড়া বিদেশে অবস্থান করায় তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বলে একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

চাকরিচ্যুত শিক্ষকরা হলেন- পরিসংখ্যান বিভাগের সাহকারী অধ্যাপক মিসেস রাদিয়া তাইসির, পপুলেশন সাইন্সের ড. মো. কামরুল ইসলাম, পরিসংখ্যান গবেষণা ও শিক্ষা ইনস্টিটিউটের সকরারী অধ্যাপক মো. মহসীন এবং সহকারী অধ্যাপক মিসেস ইয়াসমিন আক্তার ও সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আজমেরী ফেরদৌস।

তবে এক সিন্ডিকেট সদস্য জানান, চাকরিচ্যুত শিক্ষকদের মধ্যে সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আজমেরি ফেরদৌস স্বেচ্ছায় পদত্যাগের আবেদন করেছেন।  বাকি শিক্ষকরা শিক্ষা ছুটি শেষ হলেও কাজে যোগদান করেনি। তাদের সবাইকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাওনা পরিশোধ করতে বলা হয়েছে।

চাকরিচ্যুতের কারণ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এসব শিক্ষক বিদেশে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। আমরা তাদেরকে বারবার ফিরে আসতে অনুরোধ করেছি। কিন্তু তারা ফিরে আসেনি। তাই আমরা এ সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছি।

এর আগে একই অভিযোগে গত বছরের নভেম্বর মাসের ২৮ তারিখ পাঁচজন শিক্ষক ও সেপ্টেম্বর মাসের ২৯ তারিখ ২ জন শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করা হয়।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন