করোনা প্রতিরোধে রাবিতে পদক্ষেপ নেই
jugantor
করোনা প্রতিরোধে রাবিতে পদক্ষেপ নেই

  রাজশাহী ব্যুরো  

১৫ মার্চ ২০২০, ২৩:৩৪:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শুধু জনসমাগম সম্পৃক্ত 'অনুষ্ঠানের' ওপর মৌখিক নিষেধাজ্ঞা থাকলেও এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্রেও নেই কোনো প্রস্তুতি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো প্রস্তুতি না থাকায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

রাস্তাঘাট, খাবারের দোকান, শ্রেণিকক্ষ ও হলগুলোতে গাদাগাদি অবস্থার কারণে এই আতঙ্ক আরও বাড়ছে বলে শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন। এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে ডাইনিং ও ক্যান্টিনের খাবার রান্না নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিভিন্ন আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা।

তারা জানান, করোনাভাইরাস নোংরা পরিবেশে ছড়ানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ডাইনিং ও ক্যান্টিনের অপরিষ্কার পরিবেশ নিয়ে কোনো কথা বলছে না। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১টি একাডেমিক ভবনে সরেজমিন দেখা যায়, ভবনের শৌচাগারগুলোতে সাবান ও স্যানিটাইজার সংকট রয়েছে। প্রায় শৌচাগারগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছনতার অভাব। শৌচাগারের এই বেহাল দশা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী জালাল উদ্দীন বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে আমরা আতঙ্কে আছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিভাগেই এখন অবধি কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। সরকারের পক্ষ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য নির্দেশনা দেয়া হলেও আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এর কোনো বাস্তবায়ন দেখা যাচ্ছে না।

এ দিকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্র থেকে সচেতনতামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রচার ছাড়া তেমন কোনো পদক্ষেপ দেখা যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের প্রধান মেডিকেল অফিসার ডা. তবিবুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস শনাক্ত বা এর চিকিৎসা দেয়ার সক্ষমতা মেডিকেল সেন্টারের নেই। যদি কেউ আক্রান্ত হয় তাহলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠাতে হবে।

প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক আব্দুল আলীম জানান, ভিসির সঙ্গে কয়েকদিন আগে জরুরিভিত্তিতে এ বিষয়ে আলোচনা করে কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হল মেয়েদের হলের গণরুম থেকে ছাত্রীদের সরিয়ে নেয়া হবে। শিগগিরই শিক্ষার্থীদের কাছে সতর্কতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হবে। প্রত্যেক হলে খাবারের মান ও রান্নার স্থানের পরিচ্ছন্নতা নিয়েও নিয়মিত তদারকি করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) লুৎফর রহমান বলেন, আমরা প্রাথমিক কিছু পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করছি। উপাচার্য স্যারের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী সময় আরও কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

করোনা প্রতিরোধে রাবিতে পদক্ষেপ নেই

 রাজশাহী ব্যুরো 
১৫ মার্চ ২০২০, ১১:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শুধু জনসমাগম সম্পৃক্ত 'অনুষ্ঠানের' ওপর মৌখিক নিষেধাজ্ঞা থাকলেও এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্রেও নেই কোনো প্রস্তুতি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো প্রস্তুতি না থাকায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

রাস্তাঘাট, খাবারের দোকান, শ্রেণিকক্ষ ও হলগুলোতে গাদাগাদি অবস্থার কারণে এই আতঙ্ক আরও বাড়ছে বলে শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন। এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে ডাইনিং ও ক্যান্টিনের খাবার রান্না নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিভিন্ন আবাসিক হলের শিক্ষার্থীরা।

তারা জানান, করোনাভাইরাস নোংরা পরিবেশে ছড়ানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ডাইনিং ও ক্যান্টিনের অপরিষ্কার পরিবেশ নিয়ে কোনো কথা বলছে না। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া।
 
বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১টি একাডেমিক ভবনে সরেজমিন দেখা যায়, ভবনের শৌচাগারগুলোতে সাবান ও স্যানিটাইজার সংকট রয়েছে। প্রায় শৌচাগারগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছনতার অভাব। শৌচাগারের এই বেহাল দশা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী জালাল উদ্দীন বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে আমরা আতঙ্কে আছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো বিভাগেই এখন অবধি কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। সরকারের পক্ষ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের জন্য নির্দেশনা দেয়া হলেও আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে এর কোনো বাস্তবায়ন দেখা যাচ্ছে না।

এ দিকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসাকেন্দ্র থেকে সচেতনতামূলক বিজ্ঞপ্তি প্রচার ছাড়া তেমন কোনো পদক্ষেপ দেখা যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের প্রধান মেডিকেল অফিসার ডা. তবিবুর রহমান বলেন, করোনাভাইরাস শনাক্ত বা এর চিকিৎসা দেয়ার সক্ষমতা মেডিকেল সেন্টারের নেই। যদি কেউ আক্রান্ত হয় তাহলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠাতে হবে।

প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক আব্দুল আলীম জানান, ভিসির সঙ্গে কয়েকদিন আগে জরুরিভিত্তিতে এ বিষয়ে আলোচনা করে কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হল মেয়েদের হলের গণরুম থেকে ছাত্রীদের সরিয়ে নেয়া হবে। শিগগিরই শিক্ষার্থীদের কাছে সতর্কতামূলক লিফলেট বিতরণ করা হবে। প্রত্যেক হলে খাবারের মান ও রান্নার স্থানের পরিচ্ছন্নতা নিয়েও নিয়মিত তদারকি করা হবে।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) লুৎফর রহমান বলেন, আমরা প্রাথমিক কিছু পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা করছি। উপাচার্য স্যারের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী সময় আরও কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস