ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতার ওপর ছাত্রদলের হামলার অভিযোগ

  ঢাবি প্রতিনিধি ০১ জুলাই ২০২০, ২২:৪০:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কবি জসিমউদদীন হলের সদ্য সাবেক জিএস ও ছাত্রলীগ নেতা ইমাম হোসেনের ওপর ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের হামলার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার সন্ধ্যায় এই হামলার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে জনসমাগম না করার জন্য জিএস ইমাম হোসেন তার সহযোগীদের নিয়ে মাইকিং করছিলেন। এ সময় ছাত্রদল নেতা মাহফুজের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মাহফুজ ও ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছাত্রদলের অন্যান্য নেতাকর্মীরা ইমামসহ কয়েকজনের ওপর হামলা চালিয়ে তাদের গুরুতর আহত করে। এছাড়াও ঘটনাস্থালে উপস্থিত থাকা মানবজমিনের ফটো সাংবাদিক জীবন আহমেদের ক্যামেরা নিয়ে টানাটানি করা হয়।

হামলার শিকার কবি জসিমউদদীন হলের সদ্য সাবেক জিএস ইমাম হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আমরা বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়া অন্যদের ক্যাম্পাস থেকে চলে যাওয়ার জন্য মাইকিং করি। তখন ছাত্রদলের সেক্রেটারি শ্যামল, আহ্বায়ক মানছুরাসহ ১০-১২ জন ছাত্রদল নেতা টিএসসির ভেতরে অবস্থান করছিল।

ইমাম হোসেন বলেন, এরপর আমি বাইরের চায়ের দোকানে সামনে এসে দাঁড়াই। এ সময় ছাত্রদলের মাহফুজ আহমেদ চৌধুরী ও তার বান্ধবী প্রশ্ন ফাঁসের দায়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত আইন বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী সুবাহ লিয়ানা তালুকদার একটি প্রাইভেটকারে চড়ে টিএসসি এসে নামেন। আমি তাকে জিজ্ঞেস করি, তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কিনা। মাহফুজ নিজেকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেয়। কিন্তু আমি চলে আসার সময় হঠাৎ করেই আমাকে ধাক্কা দেয় মাহফুজ। এতে আমার পা ম্যানহোলে আটকে যায়।

তিনি বলেন, উদ্যানের গেটে খাবার বিক্রয়কারী মানিক দৌঁড়ে এসে আমাকে বাঁচানোর চেষ্টা করে। কিন্তু মাহফুজের ডাকে ততক্ষণে শ্যামলসহ ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে এবং আমাকে ও মানিককে মারতে শুরু করে। টিএসসিতে অবস্থানরত আমার বন্ধু সাহাদ আমিনকেও ছাত্রদল নেতাকর্মীরা মারধর করে। এতে আমার পা মচকে যায় এবং মানিকের একটি হাত ভেঙে গেছে। পরে আমরা ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা নেই। এ সময় মানবজমিনের ফটো সাংবাদিক জীবন আহমেদ ছবি তুলতে গেলে তার ক্যামেরা টেনে ধরে ছাত্রদল নেতারা।

এ বিষয়ে ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল যুগান্তরকে বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে বাড়িতে আছি। সেক্ষেত্রে আমি কীভাবে তাদের ওপর হামলা করলাম। আসলে এই পুরো ঘটনাটাই একটি সাজানো নাটক।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত