রাবি-রুয়েটে ক্লাস বর্জন করে শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ

প্রকাশ : ১১ এপ্রিল ২০১৮, ১৩:১৪ | অনলাইন সংস্করণ

  রাবি প্রতিনিধি

সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি সংস্কার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সুনির্দিষ্ট ঘোষণা ও দুই মন্ত্রীর বিতর্কিত মন্তব্য প্রত্যাহার দাবিতে ক্লাস বর্জন করে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) এবং রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) শিক্ষার্থীরা। 

বুধবার  সকাল সাড়ে ১০টার দিকে দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় চার সহস্রাধিক শিক্ষার্থী প্রধান ফটকের সামনে মহাসড়কে অবস্থান নেন। এতে সড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। 

চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে অটোরিকশা, রিকশা ও মোটরসাইকেলও। 

ক্যাম্পাস সূত্র জানায়, পূর্বঘোষণা অনুযায়ী সকাল ৯টা থেকে রাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে জড়ো হতে থাকেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। 

পরে ১০টায় সেখান থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে সিনেট ভবনের সামনে আসে। সেখানে কিছুক্ষণ অবস্থানের পর সাড়ে ১০টায় সহস্রাধিক শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে যান।

অন্যদিকে সকাল সাড়ে ১০টায় রুয়েট শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

মিছিলটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ শেষে বেলা ১১টার দিকে রুয়েটের প্রধান ফটকের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে অবস্থান নেন। তারা দ্রুত কোটা সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। 

এদিকে রাবি ও রুয়েটের শিক্ষার্থীদের অবস্থানের মাঝামাঝি স্থানে মহাসড়কে অবস্থান নিয়েছেন বেসরকারি বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। 

একই দাবিতে তারা স্লোগান দেওয়ায় রাজশাহী মহানগরীর পূর্বদিকে বিনোদপুর এবং পশ্চিম দিকে তালাইমারী এলাকা পর্যন্ত সড়কে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে আছেন।

এর আগে সরকারের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার  সন্ধ্যায় আন্দোলন স্থগিত করার ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। 

এদিন সংসদে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘রাজাকারের বাচ্চা’ এবং মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ‘বাজেটের আগে কোটা সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া সম্ভব নয়’ বলে মন্তব্য করেন। 

সরকারের এই দুই মন্ত্রীর মন্তব্যের প্রতিবাদে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তারা ফের আন্দোলনে নামেন। সেখান থেকে অনির্দিষ্টকালের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন ও অবরোধের ঘোষণা দেন আন্দোলনের রাবি শাখার সমন্বয়ক মাসুদ মোন্নাফ। 

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বুধবার সকাল থেকে ক্লাস বর্জন করে আন্দোলনে আসেন শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হয়।