জাবিতে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের হাতাহাতি, ৮ শিক্ষক লাঞ্ছিত

  জাবি প্রতিনিধি ১৭ এপ্রিল ২০১৮, ১২:৪৪ | অনলাইন সংস্করণ

জাবি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ৯টি আবাসিক হলে প্রভোস্ট নিয়োগের প্রতিবাদে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের ডাকা ধর্মঘট পালনকালে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ৮ শিক্ষক লাঞ্ছিত হয়েছে বলে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মঙ্গলবার বিকাল ৪টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর পদত্যাগ না করলে ভিসিবিরোধী আন্দোলনের হুশিয়ারি দিয়েছে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’। তবে অনাকাঙ্ক্ষিত এ ঘটনার অধিকতর তদন্তের জন্য তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পূর্বঘোষণা অনুযায়ী আওয়ামীপন্থী শিক্ষাকদের একাংশ সর্বাত্মক ধর্মঘট পালনকালে মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশমাইল পরিবহন ডিপোতে বাস চলাচলে বাধা দেয় সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরপন্থী শিক্ষকরা।

বর্তমান উপাচার্যের অনুসারী শিক্ষকরা বাস চলাচল স্বাভাবিক করতে গেলে উপস্থিত শিক্ষকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এতে শরীফ এনামুল করিবপন্থী ৬ ও ভিসি পন্থী ২ শিক্ষক লাঞ্ছিত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এরপর সকাল ৮টা থেকে শরীফ এনামুল করিবপন্থী ৩০-৪০ জন শিক্ষক প্রশাসনিক ভবন অবরোধ করে। সকাল ১০টায় উপাচার্য অধ্যাপক ফারজনা ইসলাম ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরোধ তুলে নিতে অনুরোধ করলে তা প্রত্যাখ্যান করে অবস্থানরত শিক্ষকরা।

এ সময় শরীফ এনামুল কবিরপন্থী শিক্ষকদের অসংলগ্ন কথা বলায় উপস্থিত উভয়পক্ষের শিক্ষকদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। হাতাহাতির এ ঘটনা এবং আন্দোলনকারীরা মিথ্যাচার ছড়াচ্ছে অভিযোগ করে ভিসিপন্থী শিক্ষকরা সকাল ১১টায় প্রশাসনিক ভবনের সামানে পাল্টা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

এদিকে উপাচার্য আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বলেন, ৯টি হলের প্রভোস্ট প্রশাসনিক কাজ বন্ধ রেখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছিল। তাছাড়া তাদের প্রাধ্যক্ষের নির্দিষ্ট মেয়াদও শেষ হয়েছে। তাই নিয়ম মেনেই তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে শাসনিক ভবনের সামনের হাতাহাতির ঘটনার বিচার দাবি করে শরীফপন্থী শিক্ষকরা দুপুর ১২টায় সংবাদ সম্মেলন করে।

সংবাদ সম্মেলনে শরীফপন্থী শিক্ষকরা বলেন, প্রশাসনিক ভবন অবরোধকালে আমাদের সঙ্গে উপাচার্য ও তার অনুসারীরা অসৌজন্যমূলক আচরণ করেছে এবং আমাদের কয়েকজন লাঞ্ছিত হয়েছে। এ জন্য তারা বিকাল ৪টার মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি করেন। তিনি বলেন, এ দাবি না মানলে আমরা ভিসিবিরোধী আন্দোলন শুরু করব।

এর আগে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’ বা শরীফপন্থী শিক্ষকরা উপাচার্য ফারজানা ইসলামের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট-১৯৭৩, স্ট্যাটিউট ও সিন্ডিকেট পরিচালনা বিধি লঙ্ঘন করে ৯টি হলের প্রভোস্ট নিয়োগকে কেন্দ্র করে ধর্মঘটের ডাক দেয়, যা বুধবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলবে। এরপর কালো ব্যাচ ধারণ করে মানববন্ধন করার কথা রয়েছে।

শরীফ এনামুল কবীরপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক মো. শাহেদুর রশিদ বলেন, ‘উপাচার্যের অবৈধ নিয়োগের প্রতিবাদে শান্তিপূর্ণ ধর্মঘট পালনকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডিসহ উপাচার্যপন্থী প্রায় ২৫ জন শিক্ষক এসে আমাদের ওপর ন্যক্কারজনকভাবে হামলা চালিয়েছে। এতে আমাদের ৬ জন শিক্ষক লাঞ্ছিত হয়।’ অন্যদিকে এ ঘটনায় উপাচার্যপন্থী কয়েকজন শিক্ষকও লাঞ্ছিত হয়েছেন বলে দাবি করেন রবীন্দ্রনাথ হলের নতুন নিয়োগ প্রাপ্ত প্রভোস্ট অধ্যাপক আব্দুল্লাহ হেল কাফী।

ধর্মঘট পালনকালে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের মধ্যে উদ্ভূত পরিস্থিতির তদন্তের জন্য তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এতে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. হারুন অর রশীদ খানকে আহ্বায়ক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদকে সদস্য করা হয়েছে।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার (টিচিং) মুহাম্মাদ আলীকে সদস্যসচিব করা হয়েছে। তবে আন্দোলনকারীরা গঠিত এ তদন্ত কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেছে ।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি পক্ষ চায় না যে, বিশ্ববিদ্যালয় স্থিতিশীল থাকুক। তাই বিভিন্ন অজুহাতে তারা ক্যম্পাসকে অশান্ত করতে চেষ্টা চালায়।

অবৈধ নিয়োগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি যথাযথ নিয়ম নেমেই প্রত্যেকটি নিয়োগ দিয়েছি। তবে একটি পক্ষের বাছাই করা লোক নিয়োগ না দেওয়াই তারা এমন মিথ্যাচার ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter