কুবিতে ভর্তি ফি কমানোর দাবি
jugantor
কুবিতে ভর্তি ফি কমানোর দাবি

  কুবি প্রতিনিধি  

১৪ জুন ২০২১, ১৮:৩৪:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি কমানো এবং করোনাকালীন সময়ে আবাসিক হলের ফি মওকুফের দাবিতে মানববন্ধন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি)শিক্ষার্থীরা।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের সামনে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫-১৬ শিক্ষা বর্ষের শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে বাংলা বিভাগের ১০ম ব্যাচের শিক্ষার্থী ফয়সাল হাবিব বলেন, করোনার সময় শিক্ষার্থীদের ইন্টারনেট সুবিধা দেয়ার কথা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের সে সুবিধা দেয়নি। আমাদেরকে নিজের টাকায় বা ধারদেনা করে ইন্টারনেট কিনে ক্লাস করতে হয়েছে। এছাড়াও করোনার কারণে অনেকেই অর্থনৈতিকভাবে দুরবস্থার সম্মুখীন হয়েছে। এ অবস্থায় অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের পক্ষে মাস্টার্সে এতো টাকা দিয়ে ভর্তি হওয়া প্রায় অসম্ভব। এজন্য মানবিক দিক বিবেচনায় মাস্টার্সের ভর্তি ফি হ্রাস এবং করোনাকালীন সময় আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ফি মওকুফের দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় খোলা থাকলে টিউশন বা পার্টটাইম কোনো জব করে চলা যায়। এখন সে পথও বন্ধ। এদিকে স্নাতকোত্তরে ভর্তি হতে বড় অংকের টাকা প্রয়োজন। এই টাকা ম্যানেজ করা অনেকের পক্ষেই এখন অসম্ভব। মানবিক দিক বিবেচনা করে ভর্তি ফি কমানোর দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি কমানো এবং আবাসিক হল ফি মওকুফ করার দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. আবু তাহের বলেন, স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি হ্রাস এবং হলের ফি মওকুফের বিষয়ে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করবো।

কুবিতে ভর্তি ফি কমানোর দাবি

 কুবি প্রতিনিধি 
১৪ জুন ২০২১, ০৬:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি কমানো এবং করোনাকালীন সময়ে আবাসিক হলের ফি মওকুফের দাবিতে মানববন্ধন করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষার্থীরা।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের সামনে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫-১৬ শিক্ষা বর্ষের শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে বাংলা বিভাগের ১০ম ব্যাচের শিক্ষার্থী ফয়সাল হাবিব বলেন, করোনার সময় শিক্ষার্থীদের ইন্টারনেট সুবিধা দেয়ার কথা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আমাদের সে সুবিধা দেয়নি। আমাদেরকে নিজের টাকায় বা ধারদেনা করে ইন্টারনেট কিনে ক্লাস করতে হয়েছে। এছাড়াও করোনার কারণে অনেকেই অর্থনৈতিকভাবে দুরবস্থার সম্মুখীন হয়েছে। এ অবস্থায় অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের পক্ষে মাস্টার্সে এতো টাকা দিয়ে ভর্তি হওয়া প্রায় অসম্ভব। এজন্য মানবিক দিক বিবেচনায় মাস্টার্সের ভর্তি ফি হ্রাস এবং করোনাকালীন সময় আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ফি মওকুফের দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় খোলা থাকলে টিউশন বা পার্টটাইম কোনো জব করে চলা যায়। এখন সে পথও বন্ধ। এদিকে স্নাতকোত্তরে ভর্তি হতে বড় অংকের টাকা প্রয়োজন। এই টাকা ম্যানেজ করা অনেকের পক্ষেই এখন অসম্ভব। মানবিক দিক বিবেচনা করে ভর্তি ফি কমানোর দাবি জানাচ্ছি।

মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীরা স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি কমানো এবং আবাসিক হল ফি মওকুফ করার দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দেয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. আবু তাহের বলেন, স্নাতকোত্তরের ভর্তি ফি হ্রাস এবং হলের ফি মওকুফের বিষয়ে উপাচার্যের সঙ্গে আলোচনা করবো।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন