পাসের হার কমার কারণ ‘নকল প্রতিরোধ’

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৬ মে ২০১৮, ১৪:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

নুরুল ইসলাম নাহিদ

এবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় পাসের হার কমলেও জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে।

তবে কেন পাসের হার কমেছে, এ ব্যাপারে ব্যাখ্যা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি বলেছেন, এ বছর নকল প্রতিরোধে বিভিন্নমুখী উদ্যোগ নিয়েছিল সরকার। ২৩টি বিষয়ে সৃজনশীল প্রশ্ন পদ্ধতিতে পরীক্ষা হয়েছে। এবং সব শিক্ষা বোর্ডে অভিন্ন মূল্যায়ন পদ্ধতিতে উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হয়েছে। আমরা মনে করছি, এসব কারণে পাসের হার একটু কমেছে।

রোববার সকাল ১০টার দিকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

এ সময় মন্ত্রী পাসের হার কমার এসব কারণ ব্যাখ্যা করেন।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, আগে শিক্ষকরা খাতা মূল্যায়নের ক্ষেত্রে একটু ছাড় দিতেন। কিন্তু সারা দেশে অভিন্ন পদ্ধতিতে উত্তরপত্র মূল্যায়নের পর এটি বন্ধ হয়ে যায়। আমরা চাই, সারা দেশ থেকে মেধাবীরা বেরিয়ে আসুক।

এবার সারা দেশে পাসের হার ৭৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ, যা গত বছরের চেয়ে ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ কম। ২০১৭ সালে ১০ শিক্ষা বোর্ডে গড় পাসের হার ছিল ৮০ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

তবে এবার গতবারের চেয়ে পাঁচ হাজার ৮৬৮ জন বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছে।

গত ১ ফেব্রুয়ারি এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হয় গত ৮ মার্চ।

এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় একের পর এক প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় সারা দেশে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ যাচাই-বাছাইয়ে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসএসসি পরীক্ষায় ১৭টি বিষয়ের মধ্যে ১২টিতেই নৈর্ব্যক্তিক (এমসিকিউ) অংশের ‘খ’ সেট প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ : এসএসসি-১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter