১৮ মাস পর খুলল ঢাবি গ্রন্থাগার
jugantor
১৮ মাস পর খুলল ঢাবি গ্রন্থাগার

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৩০:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাবি

দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর আজ রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, বিজ্ঞান গ্রন্থাগার ও বিভাগীয়/ইনস্টিটিউটের সেমিনার লাইব্রেরিগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে।

রোববার সকাল ১০টায় গ্রন্থাগার খুলে দেওয়া হয়। অন্তত এক ডোজ করোনা টিকার প্রমাণপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র দেখিয়ে গ্রন্থাগারে প্রবেশ করতে পারছেন শিক্ষার্থীরা। তবে গ্রন্থাগারের বাইরে থেকে কোনো বইপত্র নেওয়া যাচ্ছে না।

গ্রন্থাগারের মূল ফটকে শিক্ষার্থীদের শারীরিক দূরত্ব মেনে প্রবেশের জন্য প্রতি তিন ফুট পর বৃত্তাকার চিহ্ন দেওয়া হয়েছে।

প্রথমে টিকার প্রমাণপত্র ও পরিচয়পত্র দেখিয়ে ঢুকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এর পর ভেতরে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। ফটকের ভেতরে শিক্ষার্থীদের জন্য মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

২০২০ সালের মার্চ মাসে দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হলে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

এর পর বিশ্ববিদ্যালয় অনলইনে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করায় শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ সময় গ্রন্থাগারগুলো ব্যবহার করার সুযোগ পাননি।

সর্বশেষ ১৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেটে স্নাতক শেষ বর্ষ ও স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের জন্য ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারগুলো খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

১৮ মাস পর খুলল ঢাবি গ্রন্থাগার

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঢাবি
ছবি-সংগৃহীত

দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর আজ রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার, বিজ্ঞান গ্রন্থাগার ও বিভাগীয়/ইনস্টিটিউটের সেমিনার লাইব্রেরিগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে।

রোববার সকাল ১০টায় গ্রন্থাগার খুলে দেওয়া হয়। অন্তত এক ডোজ করোনা টিকার প্রমাণপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র দেখিয়ে গ্রন্থাগারে প্রবেশ করতে পারছেন শিক্ষার্থীরা। তবে গ্রন্থাগারের বাইরে থেকে কোনো বইপত্র নেওয়া যাচ্ছে না।

গ্রন্থাগারের মূল ফটকে শিক্ষার্থীদের শারীরিক দূরত্ব মেনে প্রবেশের জন্য প্রতি তিন ফুট পর বৃত্তাকার চিহ্ন দেওয়া হয়েছে। 

প্রথমে টিকার প্রমাণপত্র ও পরিচয়পত্র দেখিয়ে ঢুকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। এর পর ভেতরে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে। ফটকের ভেতরে শিক্ষার্থীদের জন্য মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।

২০২০ সালের মার্চ মাসে দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হলে অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো বন্ধ ঘোষণা করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। 

এর পর বিশ্ববিদ্যালয় অনলইনে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করায় শিক্ষার্থীরা দীর্ঘ সময় গ্রন্থাগারগুলো ব্যবহার করার সুযোগ পাননি।

সর্বশেষ ১৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেটে স্নাতক শেষ বর্ষ ও স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের জন্য ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারগুলো খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন