ফেসবুক স্ট্যাটাসের ২২ দিন পর চিরঘুমে ঢাবির শিক্ষক
jugantor
ফেসবুক স্ট্যাটাসের ২২ দিন পর চিরঘুমে ঢাবির শিক্ষক

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৩২:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) অধ্যাপক মাহবুব আহসান খান গত ১৭ সেপ্টেম্বর নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সাহিত্যিক শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের একটি কবিতার লাইন লিখে পোস্ট দিয়েছিলেন, ‘...এইটুকু তো জীবন, অতো দৌড়ঝাঁপে আলাদা কী পাবে? জীবন ছাড়া, মৃত্যুকে পাবার জন্যে তাড়াহুড়োর কোনো অর্থ হয় না।’

স্ট্যাটাসের ২২ দিন পর নিজেই মৃত্যুকে আলিঙ্গন করলেন তিনি। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় মারা গেলেন। ৫০ বছর বয়সী এই শিক্ষক শনিবার ভোর সাড়ে চারটার সময় নিজ বাড়িতে মারা যান।

একই ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক মো. মনিনুর রশিদ যুগান্তরকে বলেন, অধ্যাপক মাহবুব আহসানের হার্টের রিং পড়ান ছিল। এছাড়াও তার কোনো জটিল রোগ ছিল না বলেই জানি। ধারণা করা হচ্ছে, ভোর চারটার দিকে তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। তার কর্মস্থল আইইআর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল মসজিদে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর পর তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

আইইআরের পরিচালক অধ্যাপক ড. আবদুল হালিম যুগান্তরকে বলেন, অধ্যাপক মাহবুব আহসানের মৃত্যুতে আমরা আইইআর পরিবার শোকাহত। তার মতো মেধাবী ও দক্ষ শিক্ষকের আকস্মিক মৃত্যুতে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে গেছে।

ফেসবুক স্ট্যাটাসের ২২ দিন পর চিরঘুমে ঢাবির শিক্ষক

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) অধ্যাপক মাহবুব আহসান খান গত ১৭ সেপ্টেম্বর নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সাহিত্যিক শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের একটি কবিতার লাইন লিখে পোস্ট দিয়েছিলেন, ‘...এইটুকু তো জীবন, অতো দৌড়ঝাঁপে আলাদা কী পাবে? জীবন ছাড়া, মৃত্যুকে পাবার জন্যে তাড়াহুড়োর কোনো অর্থ হয় না।’

স্ট্যাটাসের ২২ দিন পর নিজেই মৃত্যুকে আলিঙ্গন করলেন তিনি। হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় মারা গেলেন। ৫০ বছর বয়সী এই শিক্ষক শনিবার ভোর সাড়ে চারটার সময় নিজ বাড়িতে মারা যান। 

একই ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক মো. মনিনুর রশিদ যুগান্তরকে বলেন, অধ্যাপক মাহবুব আহসানের হার্টের রিং পড়ান ছিল। এছাড়াও তার কোনো জটিল রোগ ছিল না বলেই জানি। ধারণা করা হচ্ছে, ভোর চারটার দিকে তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। তার কর্মস্থল আইইআর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল মসজিদে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর পর তাকে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

আইইআরের পরিচালক অধ্যাপক ড. আবদুল হালিম যুগান্তরকে বলেন, অধ্যাপক মাহবুব আহসানের মৃত্যুতে আমরা আইইআর পরিবার শোকাহত। তার মতো মেধাবী ও দক্ষ শিক্ষকের আকস্মিক মৃত্যুতে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে গেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন