প্রক্সি দিতে এসে আটক সেই শিক্ষার্থী বুয়েটের
jugantor
প্রক্সি দিতে এসে আটক সেই শিক্ষার্থী বুয়েটের

  শেকৃবি প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৮:৩৪:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের সমন্বিত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় অন্যজনের বদলি (প্রক্সি) পরীক্ষা দেওয়ার সময় আটক আরমান সাইদ বুয়েটের বস্তু ও ধাতব কৌশল বিভগের শেষ বর্ষের ছাত্র।

শনিবার শেখ কামাল ভবনের ৯০১নং কক্ষ থেকে আটক করা হয় আরমান সাইদ নামের ওই নকল শিক্ষার্থীকে। আটকের পর প্রথমে নিজের নাম-পরিচয় মিথ্যা বলে ওই শিক্ষার্থী। পুলিশি জেরায় পরবর্তীতে জানা যায়, ভর্তি পরীক্ষার্থী তানভীর হাসানের পরিবর্তে পরীক্ষা দিতে আসেন মো. আরমান সাইদ। তিনি বুয়েটের নজরুল ইসলাম হলের ২০৪ নাম্বার রুমের আবাসিক ছাত্র। তার বাড়ি নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর থানার খোর্দ্দ নারায়ণপুর গ্রামে। তার পিতার নাম ফারুক হোসেন এবং মাতার নাম আরজু আরা।

পরীক্ষায় অংশ না নেওয়া আসল পরিক্ষার্থী তানভীর হাসান। সে রংপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের ছাত্র ছিল। তার বাড়ি রংপুর সদর উপজেলায়। পিতার নাম মাহাবুর আলম।

প্রক্টরিয়াল বডি জানায়, পরীক্ষার হলে ভর্তি পরীক্ষার্থীর ছবির সঙ্গে আসামি আরমান সাইদের ছবির মিল না পাওয়ায় হলের দায়িত্বে থাকা শেকৃবির উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. খুরশিদা পারভিন আমাদের খবর দেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আরমান সাইদ সরকার প্রক্সির বিষয়টি স্বীকার করলেও নিজের নাম-পরিচয় ভুল দেন। ২০ হাজার টাকার চুক্তিতে ভর্তি পরীক্ষায় বদলি হিসেবে অংশ নিয়েছেন বলে তিনি স্বীকার করেন। প্রক্টর ড. হারুনুর রশিদ বলেন, আমরা পুলিশ দিয়ে মামলা দিয়েছি; যা ব্যবস্থা নেওয়ার তারা নেবে।

উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা শাখার প্রধান জাবের আলী বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন।

প্রক্সি দিতে এসে আটক সেই শিক্ষার্থী বুয়েটের

 শেকৃবি প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৬:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের সমন্বিত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় অন্যজনের বদলি (প্রক্সি) পরীক্ষা দেওয়ার সময় আটক আরমান সাইদ বুয়েটের বস্তু ও ধাতব কৌশল বিভগের শেষ বর্ষের ছাত্র।

শনিবার শেখ কামাল ভবনের ৯০১নং কক্ষ থেকে আটক করা হয় আরমান সাইদ নামের ওই নকল শিক্ষার্থীকে। আটকের পর প্রথমে নিজের নাম-পরিচয় মিথ্যা বলে ওই শিক্ষার্থী। পুলিশি জেরায় পরবর্তীতে জানা যায়, ভর্তি পরীক্ষার্থী তানভীর হাসানের পরিবর্তে পরীক্ষা দিতে আসেন মো. আরমান সাইদ। তিনি বুয়েটের নজরুল ইসলাম হলের ২০৪ নাম্বার রুমের আবাসিক ছাত্র। তার বাড়ি নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর থানার খোর্দ্দ নারায়ণপুর গ্রামে। তার পিতার নাম ফারুক হোসেন এবং মাতার নাম আরজু আরা।

পরীক্ষায় অংশ না নেওয়া আসল পরিক্ষার্থী তানভীর হাসান। সে রংপুর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের ছাত্র ছিল। তার বাড়ি রংপুর সদর উপজেলায়। পিতার নাম মাহাবুর আলম।

প্রক্টরিয়াল বডি জানায়, পরীক্ষার হলে ভর্তি পরীক্ষার্থীর ছবির সঙ্গে আসামি আরমান সাইদের ছবির মিল না পাওয়ায় হলের দায়িত্বে থাকা শেকৃবির উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. খুরশিদা পারভিন আমাদের খবর দেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আরমান সাইদ সরকার প্রক্সির বিষয়টি স্বীকার করলেও নিজের নাম-পরিচয় ভুল দেন। ২০ হাজার টাকার চুক্তিতে ভর্তি পরীক্ষায় বদলি হিসেবে অংশ নিয়েছেন বলে তিনি স্বীকার করেন। প্রক্টর ড. হারুনুর রশিদ বলেন, আমরা পুলিশ দিয়ে মামলা দিয়েছি; যা ব্যবস্থা নেওয়ার তারা নেবে।

উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা শাখার প্রধান জাবের আলী বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন