রাশেদসহ কোটা আন্দোলনের ৩ জনকে তুলে নিয়ে গেছে ডিবি

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০১৮, ১২:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

কোটা আন্দোলনের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন। ছবি-সংগৃহীত

কোটা আন্দোলনের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খানসহ তিনজনকে গোয়েন্দা পুলিশ-ডিবি তুলে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

অন্য দুজন হলেন- মাহফুজ খান ও সুমন কবীর। তারা পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক।

রোববার দুপুরে মিরপুর-১৪ নম্বরের ভাষানটেক বাজার এলাকার মজুমদার রোডের ১২ নম্বর বাসা থেকে তাদের তুলে নিয়ে যায় ডিবি। 

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, দুপুর ১২টার পর মিরপুরে রাশেদের বাসা থেকে তাদের তিনজনকে তুলে নিয়ে গেছে ডিবি পুলিশ। 

এ বিষয়ে ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার উপকমিশনার মাসুদুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, আইসিটি আইনের মামলায় রাশেদ খাঁনকে আজ দুপুরে মিরপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

তবে অন্য দুজনকে গ্রেফতারের বিষয়টি অস্বীকার করেন ডিসি মাসুদুর রহমান।  

চাকরিতে কোটাপ্রথা বাতিল করে সরকারি ঘোষণা বাস্তবায়ন না করায় শনিবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে সংবাদ সম্মেলন ডাকে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

সংবাদ সম্মেলন শুরুর ঠিক আগমুহূর্তে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এতে পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূরসহ সাত শিক্ষার্থী আহত হন। 

কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে নূরকে মারধরের সময় তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে যান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. জাভেদ আহমেদ। এ সময় হামলাকারীরা তার ওপর চড়াও হয়। এতে তার হাতের একটি আঙুল কেটে যায়। 

এদিকে সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে রোববার থেকে সারা দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়-কলেজে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন এবং অবরোধ কর্মসূচি চলছে।