রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলায় আহত ১৫

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০১৮, ১৫:৪৮ | অনলাইন সংস্করণ

  রাবি প্রতিনিধি

ছবি: যুগান্তর

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর দফায় দফায় হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। 

রোববার কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে আন্দোলনকারীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। পরে তা বিক্ষিপ্তভাবে গোটা ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়ে। 

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা যেখানে জড়ো হওয়ার চেষ্টা করে ছাত্রলীগ সেখানেই হামলা চালায়। ছাত্রলীগের দফায় দফায় হামলার ঘটনায় অন্তত ১৫ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। 

অপরদিকে ক্যাম্পাসে মহড়া অব্যাহত রেখেছে ছাত্রলীগ। ফলে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকালে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে ব্যানার নিয়ে মানববন্ধনে দাঁড়ানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর নেতৃত্বে ৪০-৫০ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী সেখানে উপস্থিত হয়। তারা আন্দোলনকারীদের ধাওয়া দেয়। 

ছাত্রলীগের ধাওয়ায় শিক্ষার্থীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এ সময় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা আন্দোলনকারীদের চড়-থাপ্পড় ও কিল-ঘুষি মারতে থাকে। আব্দুল্লাহ শুভ ও অন্তর নামে দুজন শিক্ষার্থীকে লাঠি নিয়ে ধাওয়া করে ছাত্রলীগ নেতা মিজানুর রহমান সিনহা। 

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিফলক চত্বর, পরিবহন মার্কেট, চতুর্থ বিজ্ঞান ভবন, শহীদুল্লাহ্ কলা ভবনের সামনে আন্দোলনকারীদের দফায় দফায় মারধর করে। 

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের রাবি শাখার যুগ্ম-আহ্বায়ক মোর্শেদুল আলম বলেন, আমরা গ্রন্থাগারের সামনে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম।

তখন ছাত্রলীগ সভাপতি কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক রুনু নেতাকর্মীদের নিয়ে আমাদের ওপর হামলা চালায়। তারা ব্যানার ছিনিয়ে নিয়েছে। বেশ কয়েকজনকে বেধড়ক মারপিট করেছে। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ক্যাম্পাসকে স্থিতিশীল রাখতে আন্দোলনকারী এবং ছাত্রলীগ উভয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছি। নিরাপত্তা জোরদারের লক্ষ্যে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে, আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা। পরে তারা গ্রন্থাগারের সামনে সমাবেশ করে হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়।