ঢাবিতে ছাত্রলীগের হামলার বিষয়টি জানেন না প্রক্টর

  যুগান্তর রিপোর্ট ০২ জুলাই ২০১৮, ১৭:৩৯ | অনলাইন সংস্করণ

কোটা
কোটাবিরোধীদের আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা। ছবি-যুগান্তর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় কোটাবিরোধীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার বিষয়টি সম্পর্কে ‘অবহিত নন’ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী।

সোমবার দুপুরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আজ এবং গত কয়েক দিনের হামলার বিষয়ে তিনি অবহিত নন উল্লেখ করে গোলাম রব্বানী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ ছিল। এ সময় যারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার অবরুদ্ধ করে কর্মসূচি দিয়েছে তাদের সম্পর্কেও আপনাদের জানতে হবে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের কর্মীরা শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করছে কি না, এই প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি প্রক্টর।

সোমবার বেলা ১০.৫০ মিনিটের দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের সামনে কোটা প্রথার সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর দফায় দফায় হামলা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

হামলায় অন্তত ১০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। হামলাকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদেরও রেহাই দেয়নি। তাদের চড়থাপ্পড় দেয়ার পাশাপাশি রাস্তায় ফেলে বেধড়ক পেটানো হয়েছে।

এদিকে শহীদ মিনার এলাকায় কোটা আন্দোলনের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসানকে মারধরের পর পুলিশের কাছে তুলে দিয়েছে ছাত্রলীগ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ও ফারুকের নেতৃত্বে কোটার দাবিতে আন্দোলনরত ১৫ থেকে ২০ জন শিক্ষার্থী সোমবার বেলা ১০টা ৫০ মিনিটের দিকে শহীদ মিনারের সামনে দাঁড়িয়েছিলেন।

এ সময় তাদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের ১০-১৫ জন নেতাকর্মীরা। এতে নেতৃত্ব দেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় স্কুল ও ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক জয়নুল আবেদীন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মুহসিন হল শাখার সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান সানী।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এ কে এম গোলাম রব্বানী

হামলার পর কোটা আন্দোলনের নেতা ফারুক নিচে পড়ে যান। তখন তাকে ঘিরে ধরে বেধড়ক মারধর করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

এরপর বঙ্গবন্ধু হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আল আমিন তার মোটরসাইকেলে করে ফারুককে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

এ সময় কোটা আন্দোলনকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা এগিয়ে এলে তাদের ওপরও হামলা করে ছাত্রলীগ কর্মীরা।

এর মধ্যে ছাত্রলীগের অন্তত আটজন নেতাকর্মী এক ছাত্রীকে ঘিরে ধরে বেধড়ক মারধর করে। এ সময় ওই ছাত্রীকে কাঁদতে দেখা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ছাত্রলীগের হামলা সত্ত্বেও কোটা আন্দোলনকারীরা বেলা ১১টা ৫ মিনিটে আবারও শহীদ মিনারে জড়ো হন। তখন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক সাইফ বাবু, মুহসীন হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান সানীর নেতৃত্বে তাদের ওপর ফের হামলার ঘটনা ঘটে।

কন্টেন্ট ক্রেডিট: যমুনা টিভি অনলাইন

ঘটনাপ্রবাহ : কোটাবিরোধী আন্দোলন ২০১৮

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter