রাবিতে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীকে ছাত্রলীগের মারধর

প্রকাশ : ০৪ জুলাই ২০১৮, ১৭:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

  রাজশাহী ব্যুরো

ছাত্রলীগের মারধরের শিকার শিক্ষার্থী জসিম উদ্দীন। ছবি: যুগান্তর

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থীকে শিবির সন্দেহে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারধর করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ভবনে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী জসিম উদ্দীন বিজয় আরবি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। 

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের জোহা চত্বরে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীদের ডেকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করছিল ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এ সময় কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী সন্দেহে ৬ শিক্ষার্থীকে সিনেট ভবনে আটক করে নিয়ে যায় নেতাকর্মীরা। তাদের মোবাইল ফোন দেখার পর ৫ শিক্ষার্থীকে চড়-থাপ্পড় মেরে ছেড়ে দেয়া হয়।

এ সময় ভুক্তভোগী জসিম উদ্দীন বিজয়ের ফেসবুকে কোটা সংস্কার আন্দোলনের সমর্থনে পোস্ট দেখতে পান ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদ জানাতে বুধবার আরবি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের নির্ধারিত ইনকোর্স পরীক্ষা বর্জনের স্ট্যাটাস দেন বিজয়। এই স্ট্যাটাস দেখে পরীক্ষা দেবে না কেন জানতে চেয়ে তাকে শাসান ও হুমকি দেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।  

একপর্যায়ে জসীমকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সিনেট ভবনের ভেতরে নিয়ে যান এবং মারধর করেন। পরে তাকে শিবির সন্দেহে প্রক্টর ও পুলিশের কাছে তুলে দেয়া হয়। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বিজয়ের একাধিক সহপাঠী মারধরের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, প্রচÐ মারধরের কারণে বিজয়ের মুখ ফুলে গেছে। 

জানতে চাইলে রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, বিজয় প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কট‚ক্তি করেছে। আমরা তাকে পুলিশ ও প্রক্টরের হাতে তুলে দিয়েছি। যারা প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কট‚ক্তি করবে তাদের বিষয়ে কোনো ছাড় হবে না। এ সময় বিজয়ের শিবিরসংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে দাবি করেন এ ছাত্রলীগ নেতা।  

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এক শিক্ষার্থীকে শিবির সন্দেহে পুলিশের কাছে দেয়া হয়েছে।

নগরীর মতিহার থানার ওসি শাহাদাত হোসেন জানান, বিজয়কে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে।