মেরুদণ্ডের হাড়ও ভেঙে গেছে তরিকুলের

প্রকাশ : ০৭ জুলাই ২০১৮, ১২:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

  রাবি প্রতিনিধি

ছাত্রলীগের হামলায় রাবি শিক্ষার্থী তরিকুলের ডান পা ও মেরুদণ্ডের হাড় ভেঙে গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। ছবি-সংগৃহীত

ছাত্রলীগ নেতাদের হামলায় আহত কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম তারেকের মেরুদণ্ডের হাড়ও ভেঙে গেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

তরিকুলের তত্ত্বাবধানে থাকা চিকিৎসক ডা. সাঈদ আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, ‘তরিকুলের ডান পা মারাত্মকভাবে ভেঙেছে। ওর পিঠের এক্স-রে করিয়েছি আমরা। কোমরের ঠিক উপরে মেরুদণ্ডের হাড় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ভেঙে গেছে বলা যায়।

তিনি বলেন, ভারী কিছুর আঘাতে এমনটি হয়েছে।  অপারেশন করার প্রয়োজন হবে কিনা সেটা রিপোর্ট হাতে এলে জানা যাবে।  তবে দীর্ঘসময় তাকে চিকিৎসা নিতে হবে।’

তরিকুল জানান, কোমরের ঠিক উপরের জায়গায় প্রচণ্ড ব্যাথা অনুভব করছেন তিনি।  ক্রমে তা বাড়ছে।  একটু নড়াচড়া করলেই মনে হচ্ছে কেউ ভারী বস্তু দিয়ে সেখানে আঘাত করছে।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের উপ-সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুনের হাতুড়ির আঘাতে মেরুদণ্ডের হাড়টি ভেঙেছে বলে ধারণা তরিকুল ও তার সহপাঠীদের।

এদিকে গত ২ জুলাই হামলার পর পাঁচদিন চিকিৎসাধীন থেকেও তরিকুলের শারিরীক অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। শরীরজুড়ে প্রচন্ড ব্যাথা। বাম পায়ে বড় কোনো আঘাত না থাকলেও ডান পা নড়াচড়া করলে পুরো শরীর ব্যাথা করছে। হাসপাতালের বেডে উঠে বসতেও পারছেন না তরিকুল।

বর্তমানে তিনি রাজশাহী নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকায় রয়েল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

শনিবার সকালে তরিকুলের সঙ্গে মোবাইলে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে কথা বলা শুরু করতেই কেঁদে ফেলেন তিনি। বলেন, ‘ভাই, খুব কষ্ট হচ্ছে। আমি কোনো দিনও কারও গায়ে হাত তুলিনি। কাউকে আঘাত দিয়ে কথাও বলিনি।  তাহলে আমাকে কেন আজ এত কষ্ট সইতে হচ্ছে?’

শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তরিকুল বলেন, ‘শরীরে খুব ব্যথা। মেডিসিন নিচ্ছি নিয়মিত। প্লাস্টার খোলা হয়েছে, আমার ডান হাটুর নীচে থেকে একদিকে হেলে গেছে। মনে হচ্ছে আমি কোনোদিনও সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারব না।  মেরুদণ্ডের হাড়েও খুব ব্যথা। বসতে পারছি না। কোমরের ঠিক উপরের দিকে ব্যাথা। অসহ্য যন্ত্রণা অনুভব করছি।’

হাসপাতালে তরিকুলের সঙ্গে থাকা তার ছোট বোন ফাতেমা খাতুন যুগান্তরকে বলেন, আমার বাবা কৃষক। মাঠে জমি-জমাও নেই আমাদের। তিন ভাই-বোন সবাই পড়াশোনা করি। বাবা-মা কষ্ট করে আমাদের পড়াচ্ছিলেন। মাসে তরিকুল ভাইয়ের জন্য হয়তো তিন/সাড়ে তিন হাজার টাকা পাঠাতেন। অথচ ভাইয়ের চিকিৎসার জন্য এখন প্রতিদিন পাঁচ হাজার টাকা প্রয়োজন হচ্ছে। এত টাকা আমরা কোথায় পাব?

হাসপাতালে তরিকুলের সঙ্গে থাকা সহপাঠীরা জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেয়ার পর তরিকুলকে রয়েল হাসপাতালে আনা হয়। এখানে অনেকগুলো পরীক্ষা করানো হয়েছে। সবগুলোর রিপোর্ট এখনও হাতে আসেনি। মেরুদণ্ডের হাড় ক্ষতিতগ্রস্ত হয়েছে, এজন্য দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা প্রয়োজন হবে তার।

গত ২ জুলাই বিকালে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীরা রাবির প্রধান ফটকের সামনে পতাকা মিছিল বের করলে সেখানে হামলা চালায় ছাত্রলীগ।  তারা রামদা, হাতুড়ি, লোহার পাইপ, বাঁশ ও লাঠি দিয়ে বেধড় পেটায় তরিকুলকে। হামলায় আরও অন্তত ১০ জন আহত হয়। তবে এর মধ্যে তরিকুলের অবস্থা গুরুতর।

তরিকুলকে হামলার সেই ভিডিও