বঙ্গবন্ধু সংবিধানে নারী-পুরুষের সমান অধিকার দিয়েছেন

প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ২১:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

  জাবি প্রতিনিধি

আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন সদ্য সাবেক তথ্য কমিশনার অধ্যাপিকা খুরশীদা বেগম। ছবি: যুগান্তর

সদ্য সাবেক তথ্য কমিশনার অধ্যাপিকা খুরশীদা বেগম বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সময় প্রণীত বাংলাদেশের সংবিধানে নারী-পুরুষের সমান অধিকার দেয়া হয়েছে। সেখানে নারী-পুরুষের কোনো বৈষম্য রাখা হয়নি।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সোমবার বিকালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ কর্তৃক আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু ও নারী মুক্তি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন। 

অধ্যাপিকা খুরশীদা বেগম বলেন, সম্পত্তি, চাকরি, বিয়ে, তালাক সর্বক্ষেত্রেই এ দেশের নাগরিকরা সমান অধিকার ভোগ করবে। কিন্তু আমরা সংবিধানের পাশাপাশি ধর্মকেও অনুসরণ করি বিধায় বিভিন্ন সময় দ্বিধান্বিত হই। তবে যে কেউ চাইলেই এ অধিকার ভোগ করতে পারবে।

বর্তমান সময়ে দুর্নীতি একটি বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু সর্বদা দুর্নীতিমুক্ত ছিলেন। তার অবস্থান ছিল সর্বদা শোষণ ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে। তাই মৃত্যুর পরে তার বাসায় একটি অবৈধ সম্পদও পাইনি বিধায় কখনো শ্বেতপত্র প্রকাশ হয়নি। তার নেতৃত্ব এমন ছিল যে, তিনি সাধারণ মানুষের মতো জীবনযাপন করতেন। তার মধ্যে বিলাসিতা ছিল না।

সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সাবেক এ অধ্যাপিকা বাঙালি জাতিকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের অনুসরণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যে কাজ (হত্যাকাণ্ড) পাকিস্তান সরকার করতে পারেনি সেটি কিছু ‘কুলাঙ্গার বাঙালি’ করে দেখিয়েছে। তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার আদর্শ ও ভালোবাসাকে হত্যা করতে ব্যর্থ হয়েছে।

এ সময় সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আ. স. ম ফিরোজ-উল হাসান বলেন, বঙ্গবন্ধুর সৌভাগ্য ছিল যে তিনি আদর্শবান নেতাদের সান্নিধ্য পেয়েছেন। আর তার সফলতা হলো তিনি বাঙালি জাতিকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পর তিন বছরে রাষ্ট্র পরিচালনায় যে সফলতা দেখিয়েছেন, দীর্ঘ ৪৮ বছরে বাংলাদেশ সে সাফল্য অব্যাহত রাখতে পারেনি।

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এসএম আবু সুফিয়ান চঞ্চলের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর শিকদার মো. জুলকারনাইন, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগে প্রভাষক ও শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মহিবুর রৌফ (শৈবাল), শারীরিক শিক্ষা বিভাগের সহকারী পরিচালক ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম সাদাত হোসেন প্রমুখ বক্তব্য দেন।