স্থগিত পরীক্ষা দু-এক মাসের মধ্যে
jugantor
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
স্থগিত পরীক্ষা দু-এক মাসের মধ্যে

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৯:৩৮:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

স্থগিত পরীক্ষা দু-এক মাসের মধ্যে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলোর স্নাতকের অবশিষ্ট পরীক্ষাগুলো দু-এক মাসের মধ্যে নেয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এ জন্য পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন মন্ত্রী।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির বিষয়ে বৃহস্পতিবার প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষে যারা আছেন, ধরে নেয়া হয় এই পরীক্ষার পর তারা কর্মজীবনে প্রবেশ করবেন। এখানে পরীক্ষা ছাড়া মূল্যায়ন করা বোধ হয় ঠিক হবে না। পরিস্থিতি এখন যা তাতে মনে হচ্ছে, এদের পরীক্ষা নেয়া যাবে। এইচএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি ছিল। এখানে যেহেতু সংখ্যাটি অত বড় নয় এবং কারিগরিতেও বিভিন্ন পর্যায়ে যারা আছেন তাদের পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি ভাবা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আশা করছি- তাদের পরীক্ষাগুলো (স্নাতক) ধীরে ধীরে নিয়ে নিতে পারব। একটু সময় হয়তো লাগবে। কিন্তু অনুরোধ করব, এখন থেকেই তারা যেন পরীক্ষার জন্য পূর্ণ প্রস্তুতি নিতে থাকেন। এক মাস বা দুই মাস পরে যখন পরীক্ষা হবে, তখন যেন আবার না বলেন প্রস্তুতি নিতে পারিনি।

উল্লেখ্য, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের দফতরের তথ্যমতে- করোনার কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন স্নাতকের চূড়ান্ত পর্বের দুই লাখ ২৬ হাজার পরীক্ষার্থী বেকায়দায় পড়েছেন বেশি। মার্চ থেকে শুরু হওয়া সাধারণ ছুটির আগে মোট ৩১টি বিষয়ে স্নাতকের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। চূড়ান্ত পর্বে মোট আটটি তত্ত্বীয় পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে পাঁচটি বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হয়। এরপরই করোনার কারণে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায়।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়

স্থগিত পরীক্ষা দু-এক মাসের মধ্যে

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্থগিত পরীক্ষা দু-এক মাসের মধ্যে
ফাইল ছবি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজগুলোর স্নাতকের অবশিষ্ট পরীক্ষাগুলো দু-এক মাসের মধ্যে নেয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এ জন্য পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন মন্ত্রী।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটির বিষয়ে বৃহস্পতিবার প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ বর্ষে যারা আছেন, ধরে নেয়া হয় এই পরীক্ষার পর তারা কর্মজীবনে প্রবেশ করবেন। এখানে পরীক্ষা ছাড়া মূল্যায়ন করা বোধ হয় ঠিক হবে না।  পরিস্থিতি এখন যা তাতে মনে হচ্ছে, এদের পরীক্ষা নেয়া যাবে।  এইচএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি ছিল।  এখানে যেহেতু সংখ্যাটি অত বড় নয় এবং কারিগরিতেও বিভিন্ন পর্যায়ে যারা আছেন তাদের পরীক্ষা নেয়ার বিষয়টি ভাবা হচ্ছে। 

তিনি বলেন, আশা করছি- তাদের পরীক্ষাগুলো (স্নাতক) ধীরে ধীরে নিয়ে নিতে পারব। একটু সময় হয়তো লাগবে।  কিন্তু অনুরোধ করব, এখন থেকেই তারা যেন পরীক্ষার জন্য পূর্ণ প্রস্তুতি নিতে থাকেন।  এক মাস বা দুই মাস পরে যখন পরীক্ষা হবে, তখন যেন আবার না বলেন প্রস্তুতি নিতে পারিনি।

উল্লেখ্য, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের দফতরের তথ্যমতে- করোনার কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন স্নাতকের চূড়ান্ত পর্বের দুই লাখ ২৬ হাজার পরীক্ষার্থী বেকায়দায় পড়েছেন বেশি।  মার্চ থেকে শুরু হওয়া সাধারণ ছুটির আগে মোট ৩১টি বিষয়ে স্নাতকের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হয়েছিল।  চূড়ান্ত পর্বে মোট আটটি তত্ত্বীয় পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে পাঁচটি বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হয়।  এরপরই করোনার কারণে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে পরীক্ষা স্থগিত হয়ে যায়।