ড্যাফোডিলের ছাত্র সেতু হত্যায় বন্ধুর যাবজ্জীবন

  যুগান্তর রিপোর্ট ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, ১৯:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

আদালত
ফাইল ছবি

রাজধানীর ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সেতু সরকারকে হত্যার দায়ে তার বন্ধু এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মেজবাউল আলমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

রোববার ঢাকার দ্রুত বিচার আদালত-১–এর বিচারক শাহেদ নূরউদ্দীন আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

এসময় মেজবাউলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি ৫০ হাজার জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

আদালতের বিশেষ প্রসিকিউটর আবদুল্লাহ ভূইয়া জানান, মেজবাউলের সব কারাদণ্ড একসঙ্গে কার্যকর হবে, ফলে তাকে কেবল যাবজ্জীবন সাজা খাটতে হবে। তবে জরিমানাগুলো সবগুলোই আলদাভাবে প্রযোজ্য হবে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৬ অগাস্ট হাজারীবাগের তল্লাবাগের একটি মেস বাড়িতে সেতু সরকারকে ‘বিকৃত যৌন সম্পর্কের’ প্রস্তাব দেয় মেজবাউল। ওই প্রস্তাবে অস্বীকৃতি জানালে সেতুকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন মেজবাউল। সে সময় সেতুর বন্ধু পুনম কুণ্ডু বাধা দিলে তাকেও বৈদ্যুতিক শক দিয়ে হত্যার চেষ্টা করেন তিনি।

ঘটনার পরদিন সেতুর কাকা রতন কুমার সরকার হাজারীবাগ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এমামলার বিচারে রাষ্ট্রপক্ষে ১৮ জনের সাক্ষ্য শোনেন বিচারক।

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন সেতু। তার বাড়ি গাইবান্ধার সাঘাটার পূর্ব রাঘবপুর গ্রামে।

আর মেজবাউল আলমের বাড়ি দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ থানার তলবরশিদ গ্রামে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter