শনাক্ত করা যায়নি ‘গহিন’কে ফেলে যাওয়া নারীদের

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ মে ২০১৯, ১৩:৪৪ | অনলাইন সংস্করণ

নবজাতক গহীন
নবজাতক গহীন। ফাইল ছবি

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের শিশু হাসপাতালের টয়লেট থেকে উদ্ধার ফুটফুটে নবজাতক গহিনকে ফেলে যান দুই নারী।

হাসপাতালের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ থেকে এই তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তবে ওই দুই নারীকে শনাক্ত করা যায়নি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা গেছে, মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে তাড়াহুড়ো করে ঢাকা শিশু হাসপাতালে ঢুকছেন দুই নারী। এদের মধ্যে একজন নারী বোরকা পরা, যার হাতে দেখা যায় কাপড়ের পুটলিসদৃশ কিছু।

আর তার সামনে আরেকজন হাঁটছেন যিনি সালোয়ার কামিজ পরে আছেন।

তারা দুজনেই টয়লেটে প্রবেশ করে আবার দ্রুত বেরিয়ে যান। টয়লেটে প্রবেশের সময় বোরকা পরিহিত নারীর হাতে পুটলি দেখা গেলেও বের হওয়ার সময় সেটি ছিল না।

তবে ভিডিও ফুটেজে পাওয়া ছবি স্পষ্ট না হওয়ায় তাদের শনাক্ত করতে বেগ পেতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার।

শেরেবাংলা নগর থানার ওসি জানে আলম বলেন, হাসপাতালের শৌচাগারে এক নবজাতককে পড়ে থাকতে দেখে রোগীর স্বজনরা ওয়ার্ড মাস্টারকে জানান। পরে ওই নবজাতককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তিনি বলেন, নবজাতকটিকে উদ্ধার করার সময় তার শরীরে তুলার কাপড় দিয়ে মোড়ানো ছিল। ধারণা করা হচ্ছে- নবজাতকটি ঢাকার কোনো অভিজাত হাসপাতালে ভূমিষ্ঠ হয়েছে।

কারণ একটু কম অভিজাত হাসপাতালে শিশু ভূমিষ্ঠের পর তার শরীর সাধারণত তোয়ালে বা কাঁথা দিয়ে জড়ানো থাকে। এ ছাড়া সালোয়ার কামিজ পরিহিত নারীর বেশভূষাও অভিজাত মনে হয়েছে।

প্রসঙ্গত গত বুধবার সকালে গহিনকে উদ্ধারের পর বৃহস্পতিবার দুপুরে আজিমপুর ছোটমনি নিবাসের কর্মকর্তাদের কাছে তাকে তুলে দেয়া হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×