দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বেড়েছে: ঐক্য পরিষদ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ মে ২০১৯, ১৫:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ
বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ। ছবি: সংগৃহীত

বর্তমানে দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বেড়েছে বলে দাবি করেছেন বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতারা।

রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত দেশে ২৫০টি সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ৭৭৬ জন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আগের বছরের সঙ্গে তুলনামূলক হিসাবে যা অনেক বেশি।

আর এই সহিংসতার সঙ্গে সরকারি দলের ভেতরে ও বাইরে থাকা প্রভাবশালীরা জড়িত। এই অপশক্তি সংখ্যালঘুদের হত্যা, ধর্ষণ, সম্পদ, ধর্মান্তরিত করা এবং বসতবাড়ি ত্যাগ করতে বাধ্য করছে।

এর মধ্যে স্বাক্ষর জাল করে সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের সরকারি দলের এমপি হাবিবুর রহমান স্বপন যে জমি দখল করেছেন, তা উল্লেখযোগ্য।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এসব ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবিতে আগামী মনিবার সকাল ১১টায় সব সংখ্যালঘু সম্প্রদায় সারা দেশে বিক্ষোভ মিছিল করবে।

ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে এ কর্মসূচি পালন করা হবে। ইতিমধ্যে সংখ্যালঘুদের ২৩টি সংগঠন এর সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেছে।

অনুষ্ঠানে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, ২০১৮ সালের তথ্যের ওপর ভিত্তি করে ফেব্রুয়ারি আমরা বলেছিলাম দেশে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা কমেছে।

কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে এটি আবার বেড়েছে। তিনি বলেন, ২০১৮ সালে পুরো বছরে দেশে ৮০৬টি সাম্প্রতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছিল।

সেখানে চলতি বছরের প্রথম চার মাসে ২৫০টি সহিংসতার তথ্য পাওয়া গেছে। এতে নির্দ্বিধায় বলা যায়, সাম্প্রতিক সহিংসতা আগের বছরের তুলনায় অনেক বেড়েছে। ফলে বিষয়টি নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।

রানা দাশগুপ্ত বলেন, সরকারি দলের ভেতরের ও বাইরের সাম্প্রতিক অপশক্তি মেলবন্ধনের মধ্য দিয়ে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা করে সারা দেশে সম্ভাব্য জঙ্গি হামলার পরিবেশ তৈরি করছে।

তিনি বলেন, সিরাজগঞ্জ-৬ আসনের এমপি হাবিবুর রহমান স্বপন অর্পিত সম্পত্তির মামলায় স্বাক্ষর জাল করে ৩০ শতাংশ জমি আত্মসাৎ করেছে।

তিনি বলেন, পঞ্চগড় কারাগারে অ্যাডভোকেট পলাশ কুমার রায়কে মিথ্যা মামলায় আটকে রেখে গায়ে আগুন দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

এ ধরনের নৃশংসতা মানবাধিকারের সুস্পষ্ট লংঘন। এছাড়াও মানবাধিকার কর্মী প্রিয়াসাহার পৈত্রিক বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে। অথচ পুলিশ ও প্রশাসন দুর্বৃত্তদের নাগাল পাচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালে পরিবারের ৬জনকে হারিয়েছিলেন সাংবাদিক প্রবীর সিকদার। তার সাহসী ভুমিকার কারণে ২০০১ সালে পা হারান। কিন্তু ২০১৫ সালে তাকে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

এ অবস্থা থেকে মুক্তি পেলেও সাম্প্রতিক সময়ে তার পরিবার ও আত্মীয় স্বজনের ওপর হামলা করা হয়েছে। সর্বশেষ গত শনিবার তাকে সপরিবারে ফরিদপুর ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে।

অত্যন্ত প্রভাবশালী এই গ্রুপটির বিরুদ্ধে প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। তবে সাংবাদিকরা জানতে চাইলেও প্রভাবশালীদের নাম বলতে চাননি তিনি।

এছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তির পুর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন না হওয়া এবং সাম্প্রতিক সময়ে সহিংসতায় নিহত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ জানানো হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি নির্মল রোজারিওসহ সংগঠনের সিনিয়র নেতাকর্মীরা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×