অফিস শুরু হলেও স্বরূপে ফেরেনি ঢাকা

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ আগস্ট ২০১৯, ১৯:২০ | অনলাইন সংস্করণ

অফিস শুরু হলেও স্বরূপে ফেরেনি ঢাকা
রাজধানীর প্রগতি সরণি সড়কের দৃশ্য। ছবি: যুগান্তর

ঈদুল আজহার ছুটি কাটাতে বিপুল সংখ্যক মানুষ রাজধানী থেকে দেশের বিভিন্ন এলাকায় গেছেন। এতে করে অফিস শুরু হলেও ব্যস্ততম ঢাকা এখনো স্বরূপে ফেরেনি। আর দশটা দিনের মতো সড়কে নেই গাড়ির জট। সুপার মার্কেট, বিপণিবিতান কিংবা ফুটপাত কোথাও নেই মানুষের ভিড় বা জটলা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, মহানগরীর প্রধান সড়কগুলো অনেকটা ফাঁকা। অল্প পরিসরে গণপরিবহন ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করছে। রিকশা, মোটরসাইকেল ও অন্যান্য গণপরিবহনের সংখ্যাও খুব কম। বৃষ্টির কারণে রাজধানীর সড়কে মানুষের উপস্থিতিও কম।

বুধবার থেকে সরকারি অফিস খোলা থাকলেও বেসরকারি বেশিরভাগ অফিস এখনো বন্ধ রয়েছে। স্কুল-কলেজ, গার্মেন্ট এবং বেশিরভাগ বিপণিবিতানও বন্ধ রয়েছে। এসব কারণে রাজধানী অনেকটাই অচেনা রূপ ধারণ করেছে।

তবে ফাঁকা এ ঢাকায় গণপরিবহনগুলোর বেপরোয়াভাব দেখা গেছে। ট্রাফিক সিগন্যালগুলোয় পুলিশের সতর্ক অবস্থান লক্ষ্য করা যায়নি। এ কারণে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে কিছু গাড়ি উল্টো দিকে চলাচল করতেও দেখা গেছে।

কুড়িল-প্রগতি সরণিতে কথা হয় মো. নজরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, অন্যান্য কর্মব্যস্ত দিনে কুড়িল-প্রগতি সরণিতে গাড়ি ও মানুষের দীর্ঘ সারি থাকে। ঈদের ছুটির কারণে ঢাকায় মানুষ কম হওয়ায় এ সড়ক অপরিচিত মনে হচ্ছে।

রাজধানীর বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট, রেল স্টেশনে দেখা গেছে, হাজার হাজার মানুষ ঢাকায় আসছে। বুধবার সকাল থেকে মহাখালী, গাবতলী, সায়েদাবাদ, কমলাপুর, সদরঘাট এলাকায় বিভিন্ন বাস টার্মিনালে গ্রাম ফেরত মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। আগামী শনিবার পর্যন্ত গ্রাম ফেরত মানুষের এ স্রোত থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার অফিস খোলা থাকলেও তেমন উপস্থিতি থাকবে না সরকারি ও বেসরকারি অফিসগুলোতে। আগামী রোববার থেকে সরকারি-বেসরকারি অফিসগুলো পুরোদমে জমে উঠবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর আগামী সপ্তাহের মধ্যে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ধাপে ধাপে চালু হবে।

একই সঙ্গে গার্মেন্টসগুলোও চালু হবে। হাজার হাজার গার্মেন্টকর্মী যোগদান করবেন স্ব স্ব কাজে। এরই মধ্য দিয়ে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে পাবে রাজধানী ঢাকা।

ঈদের ছুটিতে নগরীর বিনোদনকেন্দ্র, সিনেমা হল, পার্ক ও উন্মুক্ত স্থানগুলোতে মানুষের ভিড় থাকলেও এবার বিরতিহীন বৃষ্টির কারণে সেটা খুব কম লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বুধবার কথা হয় মোহাম্মদপুরের গৃহবধূ বিলকিছ খাতুনের সঙ্গে।

তিনি যুগান্তরকে বলেন, ‘এখন বাচ্চাদের স্কুল ঈদের ছুটি। ওরা বাইরে ঘুরতে চায়। কিন্তু বৃষ্টির কারণে বের হতে পারি না। ঈদের পরের দিন গাড়ি নিয়ে গাজীপুর সাফারি পার্কে গিয়ে ঘুরার সময় ভিজে একাকার হয়েছি।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×