মা-বাবার ফেলে যাওয়া শিশুটির ঠাঁই হচ্ছে ছোটমনি নিবাসে
jugantor
মা-বাবার ফেলে যাওয়া শিশুটির ঠাঁই হচ্ছে ছোটমনি নিবাসে

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৫২:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মা-বাবা ফেলে যাওয়া কন্যা নবজাতক

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মা-বাবার ফেলে যাওয়া কন্যা নবজাতকের ঠাঁই হচ্ছে ছোটমনি নিবাসে।

বাবা-মায়ের সন্ধান না পাওয়ায় মঙ্গলবার তাকে সমাজসেবা অধিদফতরের অধীনে ছোটমনি নিবাসে হস্তান্তর করা হবে।

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন জানান, বর্তমানে নবজাতকটি সুস্থ আছে। নবজাতকটির জন্য যা যা করার দরকার, সবই করা হয়েছে। এমনকি চিকিৎসকের পরামর্শে বাইরে থেকে দুধ কিনে এনে তাকে খাওয়ানো হচ্ছে।

মঙ্গলবার তাকে সমাজসেবা অধিদফতরের অধীনে ছোটমনি নিবাসে হস্তান্তর করা হবে।

তিনি বলেন, অনেকেই নবজাতকটিকে দত্তক নিতে হাসপাতালে এসেছিলেন। আমরা তাদের বলেছি- এটি আমাদের বিষয় নয়, আদালতে যোগাযোগ করুন।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই আবদুল খান জানান, ওই নবজাতককে দত্তক নিতে ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পে অনেক নিঃসন্তান দম্পতি নবজাতকটিকে দত্তক নিতে উপস্থিত হয়েছেন। তবে তাদের বলা হয়েছে, এটি এখন আদালতের ব্যাপার।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, ঢামেক হাসপাতালে ফেলে যাওয়া নবজাতকের মা-বাবার সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি। আমরা এ ব্যাপারে কাজ করছি। ওই নবজাতককে দত্তক নিতে অনেকেই আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক নবজাতক কন্যাকে ফেলে তার মা-বাবা উধাও হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে হাসপাতালের ওয়ার্ডে নবজাতকটির পাশে তার বাবা-মাসহ কোনো স্বজনকেই দেখা যায়নি।

ঢামেক সূত্র জানায়, শনিবার সন্ধ্যার পর থেকেই হাসপাতালের ১০৬ নম্বর ওয়ার্ডে ওই নবজাতক বিছানায় পড়ে থাকলেও তার সঙ্গে কাউকে পাওয়া যায়নি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক নাসির উদ্দিন জানিয়েছেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টায় নাহার নামে এক নারীর সিজারিয়ান ডেলিভারি হয়। মা ও সন্তান সুস্থ থাকার কারণে তাদের ১০৬ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়। সেখানে থাকা অবস্থায় তার মা-বাবা নিখোঁজ হন। শিশুটি এখন হাসপাতালের হেফাজতে রয়েছে।

মা-বাবার ফেলে যাওয়া শিশুটির ঠাঁই হচ্ছে ছোটমনি নিবাসে

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৫২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মা-বাবা ফেলে যাওয়া কন্যা নবজাতক
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মা-বাবার ফেলে যাওয়া নবজাতক। ছবি: যুগান্তর

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মা-বাবার ফেলে যাওয়া কন্যা নবজাতকের ঠাঁই হচ্ছে ছোটমনি নিবাসে। 

বাবা-মায়ের সন্ধান না পাওয়ায় মঙ্গলবার তাকে সমাজসেবা অধিদফতরের অধীনে ছোটমনি নিবাসে হস্তান্তর করা হবে।

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন জানান, বর্তমানে নবজাতকটি সুস্থ আছে। নবজাতকটির জন্য যা যা করার দরকার, সবই করা হয়েছে। এমনকি চিকিৎসকের পরামর্শে বাইরে থেকে দুধ কিনে এনে তাকে খাওয়ানো হচ্ছে।  

মঙ্গলবার তাকে সমাজসেবা অধিদফতরের অধীনে ছোটমনি নিবাসে হস্তান্তর করা হবে।
 
তিনি বলেন, অনেকেই নবজাতকটিকে দত্তক নিতে হাসপাতালে এসেছিলেন। আমরা তাদের বলেছি- এটি আমাদের বিষয় নয়, আদালতে যোগাযোগ করুন।

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই আবদুল খান জানান, ওই নবজাতককে দত্তক নিতে ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পে অনেক নিঃসন্তান দম্পতি নবজাতকটিকে দত্তক নিতে উপস্থিত হয়েছেন। তবে তাদের বলা হয়েছে, এটি এখন আদালতের ব্যাপার।

শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, ঢামেক হাসপাতালে ফেলে যাওয়া নবজাতকের মা-বাবার সন্ধান এখনও পাওয়া যায়নি। আমরা এ ব্যাপারে কাজ করছি। ওই নবজাতককে দত্তক নিতে অনেকেই আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক নবজাতক কন্যাকে ফেলে তার মা-বাবা উধাও হয়েছে। শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে হাসপাতালের ওয়ার্ডে নবজাতকটির পাশে তার বাবা-মাসহ কোনো স্বজনকেই দেখা যায়নি। 

ঢামেক সূত্র জানায়, শনিবার সন্ধ্যার পর থেকেই হাসপাতালের ১০৬ নম্বর ওয়ার্ডে ওই নবজাতক বিছানায় পড়ে থাকলেও তার সঙ্গে কাউকে পাওয়া যায়নি।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী পরিচালক নাসির উদ্দিন জানিয়েছেন, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টায় নাহার নামে এক নারীর সিজারিয়ান ডেলিভারি হয়। মা ও সন্তান সুস্থ থাকার কারণে তাদের ১০৬ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়। সেখানে থাকা অবস্থায় তার মা-বাবা নিখোঁজ হন। শিশুটি এখন হাসপাতালের হেফাজতে রয়েছে।