৪ ক্লাবে অভিযানে মিলল টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম
jugantor
৪ ক্লাবে অভিযানে মিলল টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:৪৮:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম ।

রাজধানীতে চলছে শুদ্ধি অভিযান। রাজধানীর মতিঝিলে অবস্থিত আরামবাগ, মোহামেডান, ভিক্টোরিয়া ও দিলকুশা ক্লাবে একসঙ্গে অভিযান চালায় পুলিশ।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। এখন ক্লাবগুলো থেকে উদ্ধার হওয়া টাকা, মদ, সিসা ও ক্যাসিনো-জুয়ার সামগ্রী জব্দ করা হচ্ছে।

এই ক্লাবগুলোতে ক্যাসিনো রয়েছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়।

অভিযানে অংশ নেওয়া একজন পুলিশ সদস্য সাংবাদিদের জানিয়েছেন, চারটি ক্লাবেই ক্যাসিনোর সামগ্রী পাওয়া গেছে।

চারটি ক্লাব ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি ক্লাবেই ক্যাসিনোর বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম রয়েছে। জুয়া খেলার বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জামও রয়েছে।পুলিশ ক্যাসিনোতে ব্যবহারের জন্য কয়েন ও অন্যান্য সামগ্রী জব্দ করে।

এর আগে ফকিরাপুরের ইয়ংমেনস ক্লাবে প্রথম অভিযান চালিয়ে ক্যাসিনো সামগ্রী জব্দ করা হয়।

ডিসি আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ক্যাসিনো বন্ধ করার জন্যই এই অভিযান। চারটি ক্লাবে অভিযান হচ্ছে। সেখান থেকে ক্যাসিনো সামগ্রী, টাকা ও মদ উদ্ধার করা হয়েছে।

আগে অভিযান কেন চালানো হয়নি-সাংবাদিকের এই প্রশ্নের জবাবে বলেন, ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান সব সময় চলছে।

ক্যাসিনো সামগ্রী এক দিনে আসেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ক্যাসিনো সামগ্রী একদিনে আসেনি। পুলিশ বিষয়টি জানতো না এমন নয়।
তথ্য পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পুলিশ সব সময় অভিযান পরিচালনা করেছে।

৪ ক্লাবে অভিযানে মিলল টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম ।
টাকা ও মাদকসহ ক্যাসিনোর বিপুল সরঞ্জাম । ছবি সংগৃহীত

রাজধানীতে চলছে শুদ্ধি অভিযান। রাজধানীর মতিঝিলে অবস্থিত আরামবাগ, মোহামেডান, ভিক্টোরিয়া ও দিলকুশা ক্লাবে একসঙ্গে অভিযান চালায় পুলিশ।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। এখন ক্লাবগুলো থেকে উদ্ধার হওয়া টাকা, মদ, সিসা ও ক্যাসিনো-জুয়ার সামগ্রী জব্দ করা হচ্ছে।

এই ক্লাবগুলোতে ক্যাসিনো রয়েছে এমন অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়।

অভিযানে অংশ নেওয়া একজন পুলিশ সদস্য সাংবাদিদের জানিয়েছেন, চারটি ক্লাবেই ক্যাসিনোর সামগ্রী পাওয়া গেছে।

চারটি ক্লাব ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি ক্লাবেই ক্যাসিনোর বিপুল পরিমাণ সরঞ্জাম রয়েছে। জুয়া খেলার বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জামও রয়েছে।পুলিশ ক্যাসিনোতে ব্যবহারের জন্য কয়েন ও অন্যান্য সামগ্রী জব্দ করে। 

এর আগে ফকিরাপুরের ইয়ংমেনস ক্লাবে প্রথম অভিযান চালিয়ে ক্যাসিনো সামগ্রী জব্দ করা হয়।

ডিসি আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ক্যাসিনো বন্ধ করার জন্যই এই অভিযান। চারটি ক্লাবে অভিযান হচ্ছে। সেখান থেকে ক্যাসিনো সামগ্রী, টাকা ও মদ উদ্ধার করা হয়েছে।

আগে অভিযান কেন চালানো হয়নি-সাংবাদিকের এই প্রশ্নের জবাবে বলেন, ক্যাসিনোর বিরুদ্ধে অভিযান সব সময় চলছে। 

ক্যাসিনো সামগ্রী এক দিনে আসেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন,  ক্যাসিনো সামগ্রী একদিনে আসেনি। পুলিশ বিষয়টি জানতো না এমন নয়।
তথ্য পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পুলিশ সব সময় অভিযান পরিচালনা করেছে।