আবরারের মৃত্যু: প্রথম আলো কার্যালয়ের সামনে ঢাবি শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১০ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৩২:২৫ | অনলাইন সংস্করণ

প্রথম আলো কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ। ছবি-সংগৃহীত

দৈনিক প্রথম আলোর সাময়িকী কিশোর আলোর অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎস্পর্শে রেসিডেন্সিয়ালের ছাত্র নাইমুল আবরারের নিহতের ঘটনায় দোষী ব্যক্তিদের বিচার দাবিতে শাহবাগ ও কারওয়ান বাজারে প্রথম আলো কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

গতকাল শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে জড়ো হয়ে মানববন্ধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এসময় তারা ‘প্রথম আলো বয়কট করো’, ‘কিশোর আলো বয়কট করো’ লেখাসহ বিভিন্ন ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে স্লোগান দেন।

শাহবাগের পর কারওয়ান বাজারে মানববন্ধন করেন তারা। নিজেদের তেজগাঁও কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী বলে পরিচয় দেন তারা।

কারওয়ান বাজারে বিকাল সোয়া ৫টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ খান বিক্ষোভকারীদের পক্ষ থেকে চার দফা দাবি ঘোষণা করেন।

দাবিগুলো হলো দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে আবরার হত্যার বিচার করা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনুষ্ঠান আয়োজন বন্ধ করা, প্রথম আলো ও কিশোর আলো নিষিদ্ধ করা।

শাহবাগে মানববন্ধনেও নেতৃত্বে ছিলেন আবদুল্লাহ খান। তিনি ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হল সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

এ ছাড়া শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের সহসম্পাদক রাব্বী হক ও কর্মী বেলাল হোসেন, পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সমাজসেবা সম্পাদক ও হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী আদনান হাবিব খান, হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী আবদুল্লাহ সাউমেয়ী এবং মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী উবায়দুল্লাহ রিদওয়ান দুটি কর্মসূচিতে অংশ নেন।

ঘটনাপ্রবাহ : রেসিডেনসিয়াল ছাত্র আবরারের মৃত্যু

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত