অনুপ্রবেশকারী ও নদী দখলকারীকে আ’লীগের মনোনয়ন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের প্রতিবাদ

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ২১:২২ | অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানরা। ছবি: যুগান্তর
জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা। ছবি: যুগান্তর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা উপেক্ষা করে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন অগ্নিসংযোগকারীর পুত্র, অনুপ্রবেশকারী, ভূমিদস্যু ও নদী দখলবাজকে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীক প্রদানের প্রতিবাদ জানিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড। মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই প্রতিবাদ জানানো হয়।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে সম্প্রতি কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে অনুপ্রবেশকারী, ভূমিদস্যু, নদী দখলবাজ এবং মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন অগ্নিসংযোগকারীর পুত্র আব্দুল খালেককে নৌকা প্রতীক প্রদান করা হয়েছে। জনশ্রুত যে, আব্দুল খালেক ইতিপূর্বে শিবিরের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। এ ছাড়া উপজেলা বিএনপির সদস্য হিসেবে আব্দুল খালেকের নাম লিপিবদ্ধ করা আছে।

তিনি বলেন, আব্দুল খালেককে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন দেয়ায় আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, শাপলাপুর ইউনিয়নে প্রার্থী হিসেবে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা, সাবেক চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম নূরুল আমিন হেলালীর পুত্র ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র ও বিশিষ্ট সাংবাদিক সালাহ উদ্দিন হেলালী কমল নৌকা প্রতীক প্রার্থনা করলে তৃণমূল থেকে নাম প্রেরণ করা হলেও তাকেসহ তৃণমূল প্রস্তাবিত অন্য প্রার্থীদের উপেক্ষা করে কোন্ বিবেচনায় অনুপ্রবেশকারী এবং নদী দখলদার হিসেবে অভিযুক্ত বিতর্কিত ব্যক্তিকে নৌকা প্রতীক প্রদান করা হল সেটা আমরা জানতে আগ্রহী!

মেহেদী হাসান বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কঠোর নির্দেশনা সত্ত্বেও নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অনুপ্রবেশকারীকে মনোনয়ন প্রদান শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের অবমাননা।

সংবাদ সম্মেলনে সহকারী অ্যার্টনি জেনারেল এস আর সিদ্দিকী সাঈফ ২০১৬ সালের ১৩৯৮৯ নং রিট পিটিশনে হাইকোর্ট কর্তৃক প্রদত্ত রায়ের ১৫ নম্বর নির্দেশনা পড়ে শোনান।

এ রায়ের আলোকে এবং নির্দেশনায়, কোনো নদী দখলদার ও নদী দূষণকারী হিসেবে অভিযুক্ত ব্যক্তি বাংলাদেশের সব ধরনের নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে এবং এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে উপর্যুপরি পদক্ষেপ নেয়ার জন্য মাননীয় আদালত নির্দেশ প্রদান করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিন দফা দাবি তোলা হয়। দাবিতে বলা হয়-

(১) অনতিবিলম্বে আওয়ামী লীগ এবং এর সব সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠনসমূহের সব পর্যায়ে বিভিন্ন সময়ে অনুপ্রবেশকারীদের নাম, পদবি, ঠিকানাসহ পূর্ণাঙ্গ তালিকা সব গণমাধ্যমে প্রকাশসহ সংগঠনের পক্ষ থেকে পুস্তিকা আকারে প্রকাশ করা হোক।

(২) স্বাধীনতাবিরোধীদের সন্তান ও নাতি-নাতনিসহ বিএনপি, জামায়াত-শিবির চক্রের সদস্য, দুর্নীতিবাজ, মাদক ব্যবসায়ী-সেবনকারী ব্যক্তিদের দলের সর্ব পর্যায়ে সম্মেলনে যাতে প্রার্থী, কাউন্সিলর ও ডেলিগেট হতে না পারে; সে ব্যাপারে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হোক।

(৩) অন্যান্য দল থেকে আগত নেতাকর্মীদের ন্যূনতম ১০ বছর কোনো পদে পদায়ন করা হবে না মর্মে আওয়ামী লীগের গঠণতন্ত্রে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হোক।

উল্লেখ্য, কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন সালাহ উদ্দিন হেলালী কমল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র কমল শাপলাপুরের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নূরুল আমিন হেলালীর বড় ছেলে। পাকিস্তান সরকারের করা রাষ্ট্রদ্রোহী মামলায় অন্য আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে ১৩ নম্বর আসামি ছিলেন নূরুল আমিন হেলালী। আগামী ১২ ডিসেম্বর এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×