ত্রাণ না পেয়ে কুড়িলে নিম্ন আয়ের মানুষের বিক্ষোভ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০২ এপ্রিল ২০২০, ২১:৫৭:১০ | অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার হতদরিদ্র মানুষের বিক্ষোভ। ছবি: যুগান্তর

নাম তালিকাভুক্ত করার পরও ত্রাণ সহায়তা না পাওয়ায় বিক্ষোভ করেছেন রাজধানীর কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার হতদরিদ্র মানুষ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে কুড়িল শেরেবাংলা স্কুল এলাকায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর আবু ইসহাক মিয়ার কার্যালয়ে গিয়ে বিক্ষোভ করেন তারা।

কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার হতদরিদ্র বাসিন্দারা ডিএনসিসির একই ওয়ার্ডের দায়িত্বরত কাউন্সিলর ডা. জিন্নাত আলীর অফিস এবং বাসায় গিয়েও বিক্ষোভ করেছেন বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, এলাকার দিনমজুর, অসহায় ও দুস্থদের তালিকা তৈরি করেছেন দুই ওয়ার্ড কাউন্সিলরের লোকজন। এখনও পর্যন্ত কারও পক্ষ থেকে কোনো ত্রাণ সহায়তা পাননি তারা। বৃহস্পতিবার ত্রাণ সহায়তার জন্য নবনির্বাচিত কাউন্সিলরের বাসায় গেলে তাদের ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। এ কারণে তারা সেখানে বিক্ষোভ করেছেন।

এ বিষয়ে কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার গৃহবধূ শেফালী বেগম যুগান্তরকে বলেন, ‘কাউন্সিলর অফিস থেইক্যা আমাগো নামের তালিকা করে নিছে। কিন্তু কাউরে ত্রাণ দিতাছে না। আজ (বৃহস্পতিবার) ত্রাণ আনতে কাউন্সিলর অফিসে গেছিলাম। কাউন্সিলরের লোকেরা ত্রাণ না দেয়ায় ভুক্তভোগীরা বিক্ষোভ করেছেন।’

তিনি বলেন, ‘কাউন্সিলরের (আবু ইসহাক মিয়া) লোকেরা বলছেন-সরকার তাদের কোনো বরাদ্দ দেয়নি। এ কারণে তাদের যতটুকু সামর্থ্য আছে ততটুকু দিচ্ছেন।’

এ বিষয়ে ডিএনসিসির ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর আবু ইসহাক মিয়া যুগান্তরকে বলেন, ‘আমি আজ (বৃহস্পতিবার) করোনাভাইরাস প্রতিরোধে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমে ব্যস্ত ছিলাম। শুনেছি দুপুরের দিকে আমার বাসার সামনে কুড়িল এলাকার কিছু মানুষ এসেছিলেন। আমি খোঁজখবর করে তাদের ত্রাণ পৌঁছানোর ব্যবস্থা করব।’

একই ওয়ার্ডের দায়িত্বরত কাউন্সিলর ডা. জিন্নাত আলী যুগান্তরকে বলেন, ‘ডিএনসিসি থেকে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের জন্য ২ লাখ ৭১ হাজার টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। এ টাকা দিয়ে ৬০০ প্যাকেট খাদ্য উপকরণ প্রস্তুত করা হয়েছে। সেসব খাদ্য উপকরণ বিভিন্ন বস্তিতে সরবরাহ করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, কুড়িল চৌরাস্তা এলাকার যেসব অসহায় মানুষ এখনও ত্রাণ সহযোগিতা পাননি, তাদেরও এ সহযোগিতা দেয়া হবে। এজন্য আজ (বৃহস্পতিবার) রাতে আমি এবং নবনির্বাচিত কাউন্সিলর বৈঠক করব। এরপর ডিএনসিসির বরাদ্দ এবং দুইজনের ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে কিছু বরাদ্দ দিয়ে দুস্থদের মাঝে খাদ্য উপকরণ বিতরণের চেষ্টা করব।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত