ষাটোর্ধ্বরা কোরবানীর পশুর হাটে যাবেন না
jugantor
মেয়র তাপসের অনুরোধ
ষাটোর্ধ্বরা কোরবানীর পশুর হাটে যাবেন না

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৯ জুন ২০২০, ১৮:৫৩:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখেছি যে ষাটোর্ধ্ব যারা আছেন তারা করোনাভাইরাসে বেশি আক্রান্ত হন। তাই আমি বিনীতভাবে অনুরোধ করছি, আমাদের ষাটোর্ধ্ব বয়সী ব্যক্তিরা কোরবানীর পশুর হাটে যাতে না যান।

সোমবার দুপুরে নগর ভবন অনুষ্ঠিত পবিত্র ঈদুল আজহা ২০২০ উপলক্ষে বর্জ্য অপসারণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা শীর্ষক সমন্বয় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য ঈদ-উল-আযহা একটি বড় উৎসব। কিন্তু এবারের ঈদ-উল-আযহা যেহেতু করোনাভাইরাস মহামারীকালীন, তাই উৎসব উদযাপনের পাশাপাশি যাতে করে করোনাভাইরাস এর বিস্তৃতি না ঘটে, সেজন্য আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে, আন্তরিকভাবে নাগরিক দায়িত্ব পালন করতে হবে।

তিনি এ সময় সঠিকভাবে পশুর হাট পরিচালনার জন্য সবার আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করে আরও বলেন, করোনা মহামারীকে কোনোভাবেই হালকা করে নেওয়ার সুযোগ নাই। তাই, যারা কোরবানির পশুর হাটে যাবেন তারা যেন মাস্ক, হ্যান্ড-গ্লাভস পরে এবং  সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পশুর হাটে যান সেই অনুরোধ করছি। পাশাপাশি, বিদ্যমান স্বাস্থ্যবিধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে করোনাকালীন এই কোরবানীর পশুর হাট পরিচালনার জন্য ডিএসসিসিও আলাদা করে স্বাস্থ্যবিধি তৈরি করছে।

ডিএসসিসি মেয়র তাপস এ সময় জানান যে, কোরবানির পশুর হাটের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে আমরা মোবাইল কোর্টও পরিচালনা করবো।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মো. এমদাদুল হক, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর মো. বদরুল আমিন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. শরীফ আহমেদ, সচিব আকরামুজ্জামানসহ দফতর প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

মেয়র তাপসের অনুরোধ

ষাটোর্ধ্বরা কোরবানীর পশুর হাটে যাবেন না

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৯ জুন ২০২০, ০৬:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। ফাইল ছবি
ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, আমরা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখেছি যে ষাটোর্ধ্ব যারা আছেন তারা করোনাভাইরাসে বেশি আক্রান্ত হন। তাই আমি বিনীতভাবে অনুরোধ করছি, আমাদের ষাটোর্ধ্ব বয়সী ব্যক্তিরা কোরবানীর পশুর হাটে যাতে না যান।

সোমবার দুপুরে নগর ভবন অনুষ্ঠিত পবিত্র ঈদুল আজহা ২০২০ উপলক্ষে বর্জ্য অপসারণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা শীর্ষক সমন্বয় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, মুসলিম সম্প্রদায়ের জন্য ঈদ-উল-আযহা একটি বড় উৎসব। কিন্তু এবারের ঈদ-উল-আযহা যেহেতু করোনাভাইরাস মহামারীকালীন, তাই উৎসব উদযাপনের পাশাপাশি যাতে করে করোনাভাইরাস এর বিস্তৃতি না ঘটে, সেজন্য আমাদের সবাইকে সচেতন হতে হবে, আন্তরিকভাবে নাগরিক দায়িত্ব পালন করতে হবে।

তিনি এ সময় সঠিকভাবে পশুর হাট পরিচালনার জন্য সবার আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করে আরও বলেন, করোনা মহামারীকে কোনোভাবেই হালকা করে নেওয়ার সুযোগ নাই। তাই, যারা কোরবানির পশুর হাটে যাবেন তারা যেন মাস্ক, হ্যান্ড-গ্লাভস পরে এবং  সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনেই পশুর হাটে যান সেই অনুরোধ করছি। পাশাপাশি, বিদ্যমান স্বাস্থ্যবিধির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে করোনাকালীন এই কোরবানীর পশুর হাট পরিচালনার জন্য ডিএসসিসিও আলাদা করে স্বাস্থ্যবিধি তৈরি করছে।

ডিএসসিসি মেয়র তাপস এ সময় জানান যে, কোরবানির পশুর হাটের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে আমরা মোবাইল কোর্টও পরিচালনা করবো।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মো. এমদাদুল হক, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর মো. বদরুল আমিন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. শরীফ আহমেদ, সচিব আকরামুজ্জামানসহ দফতর প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন