‘অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে চাঁদপুর রক্ষার দাবি’
jugantor
‘অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে চাঁদপুর রক্ষার দাবি’

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৬ জুলাই ২০২০, ১৬:৪৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

‘অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে চাঁদপুর রক্ষার দাবি’
ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুরকে রক্ষার জন্য অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধসহ যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছে ঢাকাস্থ চাঁদপুর জেলা সাংবাদিক ফোরাম।

রোববার সংগঠনের নেতারা জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক মানববন্ধনে এ দাবি তুলে ধরেন।

মানববন্ধনে সংগঠনের সভাপতি মিজান মালিক বলেন, আমাদের প্রাণের শহর চাঁদপুর। আমাদের শেকড় চাঁদপুরে। অব্যাহত নদী ভাঙনে সেই শহর আজ বিলীনের পথে। তাই নৈতিক দায় থেকে আমরা এই দাবিতে নেমেছি। আশা করি, সরকার দ্রুত চাঁদপুরকে নদী ভাঙন থেকে রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন সরকার বলেন, চাঁদপুরকে রক্ষা করতে হলে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে। এর কেনো বিকল্প নেই।

সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশ বলেন, ১৯৭২ সালেই বঙ্গবন্ধু চাঁদপুরকে রক্ষা করার ওপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের কাজ আন্দোলন করা নয়। বাধ্য হয়েই নিজ জেলাকে রক্ষার জন্য আমরা রাস্তায় নেমেছি।

সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল হক মান্না বলেন, চাঁদপুরের অনেক ইতিহাস-ঐতিহ্য রয়েছে। চাঁদপুরকে রক্ষা করতে না পারলে আমরা সে সব ঐতিহ্য হারাব। তাই দ্রুত চাঁদপুরকে রক্ষায় পদক্ষেপ নিতে হবে।

এ সময় সংগঠনের বেশকিছু সদস্য এবং ঢাকায় বসবাসরত চাঁদপুরের বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন। 

দ্রুত চাঁদপুরকে রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে আরও কঠিন আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দেন সংগঠনের সদস্যরা।
 

‘অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে চাঁদপুর রক্ষার দাবি’

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৬ জুলাই ২০২০, ০৪:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করে চাঁদপুর রক্ষার দাবি’
ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুরকে রক্ষার জন্য অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধসহ যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছে ঢাকাস্থ চাঁদপুর জেলা সাংবাদিক ফোরাম।

রোববার সংগঠনের নেতারা জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক মানববন্ধনে এ দাবি তুলে ধরেন।

মানববন্ধনে সংগঠনের সভাপতি মিজান মালিক বলেন, আমাদের প্রাণের শহর চাঁদপুর। আমাদের শেকড় চাঁদপুরে। অব্যাহত নদী ভাঙনে সেই শহর আজ বিলীনের পথে। তাই নৈতিক দায় থেকে আমরা এই দাবিতে নেমেছি। আশা করি, সরকার দ্রুত চাঁদপুরকে নদী ভাঙন থেকে রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

সিনিয়র সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন সরকার বলেন, চাঁদপুরকে রক্ষা করতে হলে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে। এর কেনো বিকল্প নেই।

সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার পলাশ বলেন, ১৯৭২ সালেই বঙ্গবন্ধু চাঁদপুরকে রক্ষা করার ওপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের কাজ আন্দোলন করা নয়। বাধ্য হয়েই নিজ জেলাকে রক্ষার জন্য আমরা রাস্তায় নেমেছি।

সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল হক মান্না বলেন, চাঁদপুরের অনেক ইতিহাস-ঐতিহ্য রয়েছে। চাঁদপুরকে রক্ষা করতে না পারলে আমরা সে সব ঐতিহ্য হারাব। তাই দ্রুত চাঁদপুরকে রক্ষায় পদক্ষেপ নিতে হবে।

এ সময় সংগঠনের বেশকিছু সদস্য এবং ঢাকায় বসবাসরত চাঁদপুরের বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।

দ্রুত চাঁদপুরকে রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে আরও কঠিন আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়ার ঘোষণা দেন সংগঠনের সদস্যরা।