রাজধানীর হাটগুলোতে ক্রেতা আছে গরু নেই
jugantor
রাজধানীর হাটগুলোতে ক্রেতা আছে গরু নেই

  যুগান্তর রিপোর্ট  

৩১ জুলাই ২০২০, ১৬:০০:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর হাটগুলোতে ক্রেতা আছে গরু নেই
শুক্রবারের ছবি। সংগৃহীত

করোনাকালের ঈদে গরু সংকটে ভুগছে রাজধানীর হাটগুলো। হাটগুলোতে শত শত মানুষের ভিড় দেখা গেছে। কিন্তু পছন্দসই গরুর সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকটি।

শুক্রবার গাবতলী হাট, হাজারীবাগ হাট, দিয়াবাড়ি অস্থায়ী পশুর হাট, পুরান ঢাকার রহমতগঞ্জ ক্লাব মাঠের হাটে এমন দৃশ্যই দেখা গেল।  

পুরো হাটময় বাঁশের খুঁটি মাটিতে গাঁথা, কিন্তু সেই খুঁটিতে বাঁধা নেই গরু।
 
রাজধানীর পুরান ঢাকার বেশ কয়েকজন বাসিন্দা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার হাটে অনেক গরু দেখেছেন। কিন্তু কেনেননি। আজ শুক্রবার ফজরের নামাজ পড়ে গরু কিনতে  রহমতগঞ্জ ক্লাব মাঠের হাটে গিয়ে দেখেন গরু নেই। অনেকেই হতাশ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। বিশাল আকারের মাঠের ৯৮ শতাংশ ফাঁকা পড়ে আছে। হাটের ভলান্টিয়ার, হাসিল আদায়কারীরা অলস সময় পার করছেন।

হাজারীবাগ পশুর হাটেও একই দৃশ্য। হাটে শত শত মানুষ, কিন্তু গরু আছে হাতে গোনা কয়েকটি। 

একই অবস্থা রাজধানীর সবচেয়ে বড় হাট গাবতলীতে। সেখানেও গরুর চেয়ে ক্রেতার সংখ্যা বেশি।

এদিকে হাটে গরু কম, ক্রেতা বেশি হওয়ায় শুক্রবার দাম চড়া হয়ে গেছে। পছন্দসই একটা গরুর দাম দুই লাখ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না। 

এক ক্রেতা জানান, দুদিন আগে একই আকারের একটি গরু মাত্র ৯০ হাজার টাকায় দিয়ে দিতে চেয়েছিল বিক্রেতা। বাসায় জায়গা না থাকায় সেসময় কেনননি। এখন সেই একই আকারের গরু দেড় লাখের মতো হাঁকছেন বিক্রেতারা। 

অনেকের মতে, অবিক্রিত থেকে যাওয়ার আশঙ্কায় সামান্য লাভেই বা লোকসানে বৃহস্পতিবার গুরু বিক্রি করেছেন ব্যবসায়ীরা। তাই শুক্রবার সংকট দেখা গেছে। চাহিদার চেয়ে গরু কম থাকায় আজ প্রতিটি গরুর দাম দ্বিগুণেরও বেশি হাঁকছেন আগের দিন লোকসান দেয়া ব্যবসায়ীরা। 

হাটগুলো ঘুরে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ঢাকার এসব হাটে সারাদিনই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে। বিশেষকরে সন্ধ্যা থেকে হঠাৎ করে হাটগুলোতে ক্রেতাদের ঢল নামে। মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে হাটগুলো গরুশূন্য হয়ে যায়।

রাজধানীর হাটগুলোতে ক্রেতা আছে গরু নেই

 যুগান্তর রিপোর্ট 
৩১ জুলাই ২০২০, ০৪:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রাজধানীর হাটগুলোতে ক্রেতা আছে গরু নেই
শুক্রবারের ছবি। সংগৃহীত

করোনাকালের ঈদে গরু সংকটে ভুগছে রাজধানীর হাটগুলো। হাটগুলোতে শত শত মানুষের ভিড় দেখা গেছে। কিন্তু পছন্দসই গরুর সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকটি।

শুক্রবার গাবতলী হাট, হাজারীবাগ হাট, দিয়াবাড়ি অস্থায়ী পশুর হাট, পুরান ঢাকার রহমতগঞ্জ ক্লাব মাঠের হাটে এমন দৃশ্যই দেখা গেল।

পুরো হাটময় বাঁশের খুঁটি মাটিতে গাঁথা, কিন্তু সেই খুঁটিতে বাঁধা নেই গরু।

রাজধানীর পুরান ঢাকার বেশ কয়েকজন বাসিন্দা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার হাটে অনেক গরু দেখেছেন। কিন্তু কেনেননি। আজ শুক্রবার ফজরের নামাজ পড়ে গরু কিনতে রহমতগঞ্জ ক্লাব মাঠের হাটে গিয়ে দেখেন গরু নেই। অনেকেই হতাশ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। বিশাল আকারের মাঠের ৯৮ শতাংশ ফাঁকা পড়ে আছে। হাটের ভলান্টিয়ার, হাসিল আদায়কারীরা অলস সময় পার করছেন।

হাজারীবাগ পশুর হাটেও একই দৃশ্য। হাটে শত শত মানুষ, কিন্তু গরু আছে হাতে গোনা কয়েকটি।

একই অবস্থা রাজধানীর সবচেয়ে বড় হাট গাবতলীতে। সেখানেও গরুর চেয়ে ক্রেতার সংখ্যা বেশি।

এদিকে হাটে গরু কম, ক্রেতা বেশি হওয়ায় শুক্রবার দাম চড়া হয়ে গেছে। পছন্দসই একটা গরুর দাম দুই লাখ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না।

এক ক্রেতা জানান, দুদিন আগে একই আকারের একটি গরু মাত্র ৯০ হাজার টাকায় দিয়ে দিতে চেয়েছিল বিক্রেতা। বাসায় জায়গা না থাকায় সেসময় কেনননি। এখন সেই একই আকারের গরু দেড় লাখের মতো হাঁকছেন বিক্রেতারা।

অনেকের মতে, অবিক্রিত থেকে যাওয়ার আশঙ্কায়সামান্য লাভেইবা লোকসানে বৃহস্পতিবার গুরু বিক্রি করেছেন ব্যবসায়ীরা।তাই শুক্রবার সংকট দেখা গেছে। চাহিদার চেয়ে গরু কম থাকায় আজ প্রতিটি গরুর দাম দ্বিগুণেরও বেশি হাঁকছেন আগের দিনলোকসান দেয়া ব্যবসায়ীরা।

হাটগুলো ঘুরে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার ঢাকার এসব হাটে সারাদিনই ক্রেতাদের ভিড় দেখা গেছে। বিশেষকরে সন্ধ্যা থেকে হঠাৎ করে হাটগুলোতে ক্রেতাদের ঢল নামে। মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যে হাটগুলো গরুশূন্য হয়ে যায়।