কড়াইল বস্তিতে ‘পাশবিক নির্যাতনে’ শিশুর মৃত্যু, বাবা আটক
jugantor
কড়াইল বস্তিতে ‘পাশবিক নির্যাতনে’ শিশুর মৃত্যু, বাবা আটক

  ঢামেক প্রতিনিধি  

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:০৭:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

আটক মহিউদ্দিন

রাজধানীর মহাখালীর কড়াইল বস্তিতে ‘পাশবিক নির্যাতনে’ তানজিনা (৩) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা মহিউদ্দিনকে আটক করেছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ক্যাম্প পুলিশ।

মৃত শিশুটির বাবা মহিউদ্দিন অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সকাল ১০টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চিকিৎসকের বরাত দিয়ে ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, শিশুটির মুখে কামড়ের দাগ ও যৌনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পাশবিক নির্যাতনে শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্টে পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে।

তিনি আরও বলেন, শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা তার পিতা মহিউদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। তার কথাবার্তা সন্দেহজনক। বিষয়টি বনানী থানাকে জানানো হয়েছে।

মৃত শিশুটির বাবা মহউদ্দিন বলেন, আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের উত্তরমণ্ডল গ্রামে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালাই। দুই সন্তানকে নিয়ে গ্রামেই থাকি। আর তানজিলা ওর মায়ের সঙ্গে কড়াইল বস্তিতে জদু মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকত। আমার স্ত্রী জরিনা বেগম একটি পোশাক কারখানায় কাজ করে।

তিনি বলেন, তিন দিন আগে আমি ঢাকায় আসি। তানজিলাকে আমার কাছে রেখে ওর মা কাজে যায়। সকালে তানজিলা গান শুনতে চাইলে আমি টিভি ছেড়ে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ি। ঘুম থেকে জেগে মেয়েকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করি। পরে দেখি বাসার দোতলার সিঁড়ির পাশে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কড়াইল বস্তিতে ‘পাশবিক নির্যাতনে’ শিশুর মৃত্যু, বাবা আটক

 ঢামেক প্রতিনিধি 
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৩:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আটক মহিউদ্দিন
আটক মহিউদ্দিন। ছবি-যুগান্তর

রাজধানীর মহাখালীর কড়াইল বস্তিতে ‘পাশবিক নির্যাতনে’ তানজিনা (৩) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা মহিউদ্দিনকে আটক করেছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ক্যাম্প পুলিশ।

মৃত শিশুটির বাবা মহিউদ্দিন অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সকাল ১০টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চিকিৎসকের বরাত দিয়ে ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, শিশুটির মুখে কামড়ের দাগ ও যৌনাঙ্গে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, পাশবিক নির্যাতনে শিশুটির  মৃত্যু হয়েছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্টে পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে।

তিনি আরও বলেন, শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে আসা তার পিতা মহিউদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। তার কথাবার্তা সন্দেহজনক। বিষয়টি বনানী থানাকে জানানো হয়েছে।

মৃত শিশুটির বাবা মহউদ্দিন বলেন, আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের উত্তরমণ্ডল গ্রামে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালাই। দুই সন্তানকে নিয়ে গ্রামেই থাকি। আর তানজিলা ওর মায়ের সঙ্গে কড়াইল বস্তিতে জদু মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকত। আমার স্ত্রী জরিনা বেগম একটি পোশাক কারখানায় কাজ করে।

তিনি বলেন, তিন দিন আগে আমি ঢাকায় আসি। তানজিলাকে আমার কাছে রেখে ওর মা কাজে যায়। সকালে তানজিলা গান শুনতে চাইলে আমি টিভি ছেড়ে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ি। ঘুম থেকে জেগে মেয়েকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করি। পরে দেখি বাসার দোতলার সিঁড়ির পাশে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন