স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ জোগাতে বন্ধুর ছেলেকে অপহরণ
jugantor
স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ জোগাতে বন্ধুর ছেলেকে অপহরণ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ মার্চ ২০২১, ২১:২৪:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর ডেমরায় স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ জোগাতে ও ঋণের বোঝা সইতে না পেরে মো. নাজমুল শেখ (২২) নামে এক গার্মেন্টকর্মী বন্ধুর ছয় বছরের শিশু ছেলেকে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় অপহরণকারী এক লাখ ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করায় অপহৃতের বাবা দুটি বিকাশ নম্বরে দুই দফায় ১০ হাজার টাকা প্রদান করেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর বাবা রাজীব ভূঁইয়া সোমবার রাতে ডেমরা থানায় মামলা করেন। পরে ওই রাতেই ডেমরা থানা পুলিশ ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের কালীগঞ্জ এলাকা থেকে নাজমুল শেখকে গ্রেফতার করে। এ সময় মাদ্রাসাশিক্ষার্থী অপহৃত জুবায়েরকে (৬) উদ্ধার করা হয়। পরে মঙ্গলবার নাজমুল শেখকে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

নাজমুল ওই এলাকার চৌধুরী মার্কেটের সম্রাটের প্যান্টের দোকান কর্মচারী ও ফরিদপুরের সদরপুর থানার চরআড়িয়ালখাঁ হাট এলাকার মো. সিরাজ শেখের ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসির উদ্দিন।

প্রত্যক্ষ্যদর্শী ও ভুক্তভোগীর পরিবারের বরাত দিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. শাহজাহান বলেন, নাজমুলের স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছেন। এতে তার হৃদযন্ত্রে ইনফেকশন সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ করতে ইতোমধ্যে অনেক টাকা ঋণ হন নাজমুল। আর পাওনাদারেরা এ ঋণের টাকা পরিশোধের জন্য প্রতিনিয়ত চাপ সৃষ্টি করছিলেন নাজমুলকে। এ ঘটনায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ৮টার দিকে জুবায়ের বাড়ির পাশের দোকানে চিপস কিনতে গেলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাকে অপহরণ করে নাজমুল।

স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ জোগাতে বন্ধুর ছেলেকে অপহরণ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ মার্চ ২০২১, ০৯:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর ডেমরায় স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ জোগাতে ও ঋণের বোঝা সইতে না পেরে মো. নাজমুল শেখ (২২) নামে এক গার্মেন্টকর্মী বন্ধুর ছয় বছরের শিশু ছেলেকে অপহরণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ঘটনায় অপহরণকারী এক লাখ ২০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করায় অপহৃতের বাবা দুটি বিকাশ নম্বরে দুই দফায় ১০ হাজার টাকা প্রদান করেন।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীর বাবা রাজীব ভূঁইয়া সোমবার রাতে ডেমরা থানায় মামলা করেন। পরে ওই রাতেই ডেমরা থানা পুলিশ ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের কালীগঞ্জ এলাকা থেকে নাজমুল শেখকে গ্রেফতার করে। এ সময় মাদ্রাসাশিক্ষার্থী অপহৃত জুবায়েরকে (৬) উদ্ধার করা হয়। পরে মঙ্গলবার নাজমুল শেখকে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

নাজমুল ওই এলাকার চৌধুরী মার্কেটের সম্রাটের প্যান্টের দোকান কর্মচারী ও ফরিদপুরের সদরপুর থানার চরআড়িয়ালখাঁ হাট এলাকার মো. সিরাজ শেখের ছেলে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডেমরা থানার ওসি খন্দকার নাসির উদ্দিন। 

প্রত্যক্ষ্যদর্শী ও ভুক্তভোগীর পরিবারের বরাত দিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মো. শাহজাহান বলেন, নাজমুলের স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে হৃদরোগে ভুগছেন। এতে তার হৃদযন্ত্রে ইনফেকশন সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে স্ত্রীর চিকিৎসার খরচ করতে ইতোমধ্যে অনেক টাকা ঋণ হন নাজমুল। আর পাওনাদারেরা এ ঋণের টাকা পরিশোধের জন্য প্রতিনিয়ত চাপ সৃষ্টি করছিলেন নাজমুলকে। এ ঘটনায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ৮টার দিকে জুবায়ের বাড়ির পাশের দোকানে চিপস কিনতে গেলে পূর্বপরিকল্পিতভাবে তাকে অপহরণ করে নাজমুল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর