আরমানিটোলায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪, একজন ইডেন ছাত্রী
jugantor
আরমানিটোলায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪, একজন ইডেন ছাত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৩ এপ্রিল ২০২১, ১৪:৫৪:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর পুরান ঢাকার আরামানিটোলায় রাসায়নিক গুদামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আরও দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল চারজনে।

ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, ভোররাত সোয়া তিনটার দিকে ওই ভবনে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের ১৯টি ইউনিট ৩ ঘণ্টার চেষ্টার পর শুক্রবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে। ওই ভবনের পাশের একটি ভবনের একজন বাসিন্দা অভিযোগ করেন, ওই ভবনের নিচে রাসায়নিকের গুদাম রয়েছে। তার দাবি, আশপাশের প্রায় সব ভবনেই এ ধরনের গুদাম রয়েছে।

বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহীন ফকির জানান, ভবনের ওপরের তলায় নিরাপত্তারক্ষীর কক্ষ থেকে তারা ওয়ালিউল্লাহ ও কবির নামের দুজনের মরদেহ উদ্ধার করেছেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়।

এর আগে সকালে নিরাপত্তাকর্মী রাসেল ও সুমাইয়া নামে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

সুমাইয়া ইডেন কলেজের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

এ ঘটনায় ১৭ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান। তিনি বলেন, তাদের মধ্যে ১৪ জন ভবনের বাসিন্দা। আর ৩ জন ফায়ার সার্ভিস কর্মী।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক চিকিৎসক সামন্ত লাল সেন জানান, সেখানে চিকিৎসাধীন চারজনের শরীরের ২৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাদের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোররাতে আরমানিটোলার হাজি মুসা ম্যানশনের নিচতলায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ছয়তলা ভবনটিতে নিচতলায় দোকান ও রাসায়নিক গুদাম ছিল বলে এলাকাবাসী জানান। অন্য ফ্লোরে লোকজন ভাড়া নিয়ে বসবাস করত।

আরমানিটোলায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪, একজন ইডেন ছাত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৩ এপ্রিল ২০২১, ০২:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর পুরান ঢাকার আরামানিটোলায় রাসায়নিক গুদামে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আরও দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল চারজনে।

ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, ভোররাত সোয়া তিনটার দিকে ওই ভবনে আগুন লাগে।  ফায়ার সার্ভিসের ১৯টি ইউনিট ৩ ঘণ্টার চেষ্টার পর শুক্রবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে। ওই ভবনের পাশের একটি ভবনের একজন বাসিন্দা অভিযোগ করেন, ওই ভবনের নিচে রাসায়নিকের গুদাম রয়েছে। তার দাবি, আশপাশের প্রায় সব ভবনেই এ ধরনের গুদাম রয়েছে।

বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহীন ফকির জানান, ভবনের ওপরের তলায় নিরাপত্তারক্ষীর কক্ষ থেকে তারা ওয়ালিউল্লাহ ও কবির নামের দুজনের মরদেহ উদ্ধার করেছেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়। 

এর আগে সকালে নিরাপত্তাকর্মী রাসেল ও সুমাইয়া নামে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। 

সুমাইয়া ইডেন কলেজের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। 

এ ঘটনায় ১৭ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল জিল্লুর রহমান।  তিনি বলেন, তাদের মধ্যে ১৪ জন ভবনের বাসিন্দা। আর ৩ জন ফায়ার সার্ভিস কর্মী। 

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক চিকিৎসক সামন্ত লাল সেন জানান, সেখানে চিকিৎসাধীন চারজনের শরীরের ২৫ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাদের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোররাতে আরমানিটোলার হাজি মুসা ম্যানশনের নিচতলায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। 

ছয়তলা ভবনটিতে নিচতলায় দোকান ও রাসায়নিক গুদাম ছিল বলে এলাকাবাসী জানান।  অন্য ফ্লোরে লোকজন ভাড়া নিয়ে বসবাস করত। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন