রাজধানীতে দিনে ৬৪৬ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন
jugantor
রাজধানীতে দিনে ৬৪৬ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৫ মে ২০২১, ২২:৫৯:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানী ঢাকায় ২০০৫ সালে দৈনিক প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন হতো ১৭৮ টন। ১৫ বছর পর ২০২০ সালে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৬৪৬ টনে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস থেকে বুধবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভুটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, সবুজ ও স্মার্ট প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করার জন্য প্লাস্টিক দূষণকে মোকাবিলা করা একটি গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন এজেন্ডা।

মার্সি টেম্বন বলেন, প্রতিযোগিতায় প্লাস্টিকের দূষণকে পরাজিত করার প্রস্তাবিত সৃজনশীল ও ব্যবহারিক সমাধানগুলোর বিষয়ে আমি অভিভূত। প্লাস্টিকের টেকসই ব্যবস্থাপনার দিকে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ সরকার, বেসরকারি খাত এবং সুশীল সমাজের দলগুলোর সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশায় রয়েছে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, বাংলাদেশ সরকার দূষণ রোধ এবং টেকসই সবুজ বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা দূষণ রোধ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নতির জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছি। এ ইস্যুতে আমাদের যুবসমাজ ভালোভাবে জড়িত রয়েছে এবং প্লাস্টিকের দূষণ রোধ করার জন্য সমাধানের উপায় বের করছে।

বিশ্বব্যাংক জানায়, ‘প্লাস্টিক সার্কুলারিটি ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক প্রতিযোগিতায় চারটি বিজয়ী দলকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশে প্লাস্টিক দূষণ মোকাবিলায় সমাধানের উপায়গুলো খোঁজা হয়েছে।

রাজধানীতে দিনে ৬৪৬ টন প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৫ মে ২০২১, ১০:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজধানী ঢাকায় ২০০৫ সালে দৈনিক প্লাস্টিক বর্জ্য উৎপাদন হতো ১৭৮ টন। ১৫ বছর পর ২০২০ সালে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৬৪৬ টনে।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস থেকে বুধবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভুটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেম্বন সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, সবুজ ও স্মার্ট প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করার জন্য প্লাস্টিক দূষণকে মোকাবিলা করা একটি গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন এজেন্ডা।

মার্সি টেম্বন বলেন, প্রতিযোগিতায় প্লাস্টিকের দূষণকে পরাজিত করার প্রস্তাবিত সৃজনশীল ও ব্যবহারিক সমাধানগুলোর বিষয়ে আমি অভিভূত। প্লাস্টিকের টেকসই ব্যবস্থাপনার দিকে বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশ সরকার, বেসরকারি খাত এবং সুশীল সমাজের দলগুলোর সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশায় রয়েছে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব জিয়াউল হাসান বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, বাংলাদেশ সরকার দূষণ রোধ এবং টেকসই সবুজ বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা দূষণ রোধ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নতির জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছি। এ ইস্যুতে আমাদের যুবসমাজ ভালোভাবে জড়িত রয়েছে এবং প্লাস্টিকের দূষণ রোধ করার জন্য সমাধানের উপায় বের করছে।

বিশ্বব্যাংক জানায়, ‘প্লাস্টিক সার্কুলারিটি ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক প্রতিযোগিতায় চারটি বিজয়ী দলকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশে প্লাস্টিক দূষণ মোকাবিলায় সমাধানের উপায়গুলো খোঁজা হয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন