শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ছাগলের বাজার
jugantor
শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ছাগলের বাজার

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২১ জুলাই ২০২১, ০২:০৪:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ছাগলের বাজার

করোনার চোখ রাঙানির মধ্যেই উদযাপিত হতে যাচ্ছে আরো একটি ঈদ। মহামারি এখন অতিমারি পর্যায়ে। যে কারণে ঈদকে সামনে রেখে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে বেশ সতর্ক সরকার।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকালে ঈদের জামাতে অংশগ্রহণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সবার মুখে মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে এবং কোলাকুলি করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

এদিকে কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে শেষ সময়ে জমে উঠেছে রাজধানীর বিভিন্ন পশুর হাটে বেচাকেনা।

তবে গরুর চাইতে বেশি জমেছে ছাগল বিক্রি। রাস্তায় বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে ছাগল বিক্রি করতে দেখা যাচ্ছে। অনেকেই দরদাম কষাকষি করছেন। বনিবনা হলে বিক্রেতা ছেড়ে দিচ্ছেন।

রাত সাড়ে ১১টায় রাজধানীর হাতিরপুল বাজারের রাস্তায় এমন চিত্রই দেখা গেল। মানুষের উপচে পড়া ভিড় ঠেলে ভেতরে ঢুকেই দেখা গেল ছড়িয়েছিটিয়ে অনেক ছাগল।

ক্রেতার সংখ্যাও কম নয়। ক্রেতা-বিক্রেতার মাঝে দর কষাকষিতে পরিবেশ মুখরিত।

দর কষাকষি করছেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকতা। তিনি বলেন, না, গরু কেনা হয়েছে আমার। এখান দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় দেখলাম প্রচুর ছাগল বিক্রি হচ্ছে। দেখতেও মাশাআল্লাহ। তাই দামদর করে দেখছি মিলে কি না।

আরেকজন ক্রেতা জানালেন ছাগল কিনতে আসার ভিন্ন কারণ। বললেন, করোনায় সংকটে আছি। একা একটি গরু কোরবানি দেওয়া সাধ্য নেই এবার। ভাগে চেয়েছিলাম। কিন্তু প্রতিবেশীদের সাথে সেভাবে মেলেনি বিষয়টা। তাই ছাগল দেব এবার। শেষ মুহূর্তে এটাই সিদ্ধান্ত।

তিনি জানান, তার মতো অনেকেই গরুর বাজার ঘুরে এসে সাধ্যতে না কুলোতে পারায় ছাগল কিনছেন।

এমন সব কথাবার্তার মধ্যেই ১২ হাজার, ১৫ হাজারে কয়েকটি বড় আকারের ছাগল বিক্রি হয়ে গেল।

শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ছাগলের বাজার

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২১ জুলাই ২০২১, ০২:০৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ছাগলের বাজার
ছবি: সংগৃহীত

করোনার চোখ রাঙানির মধ্যেই উদযাপিত হতে যাচ্ছে আরো একটি ঈদ। মহামারি এখন অতিমারি পর্যায়ে। যে কারণে ঈদকে সামনে রেখে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে বেশ সতর্ক সরকার।

 স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকালে ঈদের জামাতে অংশগ্রহণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সবার মুখে মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে এবং কোলাকুলি করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

এদিকে কুরবানি ঈদকে সামনে রেখে শেষ সময়ে জমে উঠেছে রাজধানীর বিভিন্ন পশুর হাটে বেচাকেনা।

তবে গরুর চাইতে বেশি জমেছে ছাগল বিক্রি। রাস্তায় বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে ছাগল বিক্রি করতে দেখা যাচ্ছে। অনেকেই দরদাম কষাকষি করছেন। বনিবনা হলে বিক্রেতা ছেড়ে দিচ্ছেন।

রাত সাড়ে ১১টায় রাজধানীর হাতিরপুল বাজারের রাস্তায় এমন চিত্রই দেখা গেল। মানুষের উপচে পড়া ভিড় ঠেলে ভেতরে ঢুকেই দেখা গেল ছড়িয়েছিটিয়ে অনেক ছাগল।

ক্রেতার সংখ্যাও কম নয়। ক্রেতা-বিক্রেতার মাঝে দর কষাকষিতে পরিবেশ মুখরিত।

দর কষাকষি করছেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের এক কর্মকতা। তিনি বলেন, না, গরু কেনা হয়েছে আমার। এখান দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় দেখলাম প্রচুর ছাগল বিক্রি হচ্ছে। দেখতেও মাশাআল্লাহ। তাই দামদর করে দেখছি মিলে কি না।

আরেকজন ক্রেতা জানালেন ছাগল কিনতে আসার ভিন্ন কারণ। বললেন, করোনায় সংকটে আছি। একা একটি গরু কোরবানি দেওয়া সাধ্য নেই এবার। ভাগে চেয়েছিলাম। কিন্তু প্রতিবেশীদের সাথে সেভাবে মেলেনি বিষয়টা। তাই ছাগল দেব এবার। শেষ মুহূর্তে এটাই সিদ্ধান্ত।

তিনি জানান, তার মতো অনেকেই গরুর বাজার ঘুরে এসে সাধ্যতে না কুলোতে পারায় ছাগল কিনছেন।

এমন সব কথাবার্তার মধ্যেই ১২ হাজার, ১৫ হাজারে কয়েকটি বড় আকারের ছাগল বিক্রি হয়ে গেল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন